চাঁদপুর, সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২৩ রবিউস সানি ১৪৪৩  |   ২২ °সে
আজকের পত্রিকা জাতীয়আন্তর্জাতিকরাজনীতিখেলাধুলাবিনোদনঅর্থনীতি শিক্ষা স্বাস্থ্য সারাদেশ ফিচার সম্পাদকীয়
ব্রেকিং নিউজ
  •   প্রিজাইডিং ও সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার নিজেই ব্যালটে সিল মারতে থাকেন

প্রকাশ : ২০ অক্টোবর ২০২১, ০০:০০

মহানবীর জীবনাদর্শ সকলের জন্য অনুকরণীয়

মহানবীর জীবনাদর্শ সকলের জন্য অনুকরণীয়
অনলাইন ডেস্ক

আজ পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম। সকলকে ঈদে মিলাদুন্নবীর শুভেচ্ছা। বছর ঘুরে এই মহান দিবসটির আগমনের অপেক্ষায় থাকে মুসলিম উম্মাহ। আর থাকবেই না কেনো! যে নবীকে উপলক্ষ করে আল্লাহ রাব্বুল আলামিন বিশ্ব জগত সৃষ্টি করেছেন, যে নবীকে আল্লাহ রাহমাতুল্লিল আলামীন বলে ঘোষণা দিয়েছেন, যে নবীর আগমনকে মানবজাতির জন্য সর্বশ্রেষ্ঠ নেয়ামত এবং অনুগ্রহ বলে আল্লাহ ঘোষণা দিয়েছেন, যাঁকে আল্লাহ একমাত্র হাবিব (প্রেমাস্পদ) বলে সম্বোধন করেছেন, সেই প্রিয় নবীর আগমন দিবস মুসলিম উম্মাহর কাছে সর্বোচ্চ কাক্সিক্ষত দিনক্ষণ হয়ে থাকবে এটাই স্বাভাবিক। আর আল্লাহর সর্বশ্রেষ্ঠ নেয়ামত প্রাপ্তিতে এদিন মুসলিম উম্মাহ ঈদ পালন করবে সেটাও স্বাভাবিক। আর এই ঈদ মর্যাদা এবং গুরুত্বের দিক দিয়ে অন্য দুই ঈদ তথা ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আজহা থেকে বহুগুণ বেশিই শুধু নয়, সকল ঈদের মূল ভিত্তি হচ্ছে পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী। কারণ, ঈদে মিলাদুন্নবী তথা নবীজির জন্ম না হলে কোনো ঈদেরই তো অস্তিত্ব হতো না। সেই কাক্সিক্ষত ঈদ ঈদে মিলাদুন্নবী আজ।

আল্লাহর প্রিয় হাবীব মহানবী হযরত মোহাম্মদ মোস্তফা সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর জীবনাদর্শ মানবজাতির জন্য অনুকরণীয় আদর্শ। তাঁর জীবনাদর্শ শুধু মুসলিম উম্মাহর জন্যই অনুকরণীয় নয়, সমগ্র সৃষ্টি জগতের জন্য অনুকরণীয় আদর্শ। তাঁর শুভাগমনের দ্বারা মানবতা মুক্তি পেয়েছে, নারীর সম্মান-মর্যাদা সুপ্রতিষ্ঠিত হয়েছে। পৃথিবীতে ন্যায়নীতি প্রতিষ্ঠা পেয়েছে। মদিনার সনদ, হুদায়বিয়ার সন্ধি, মক্কা বিজয়-এ সব বিচার বিশ্লেষণ করলে আমরা দেখতে পাই সাম্য এবং সম্প্রীতির কতটা নজির তিনি পৃথিবীতে রেখে গেছেন। আজকের সংঘাতময় পৃথিবীতে তাঁর আদর্শকে অনুসরণ করলে নিমিষেই শান্তির সুবাতাস বইতে থাকবে। সমাজ, রাষ্ট্র সর্বত্র শান্তি ও ন্যায়নীতি প্রতিষ্ঠা পাবে তাঁর জীবনাদর্শ অনুকরণের মধ্য দিয়ে।

সিহাহ্ সিত্তার অন্যতম হাদিস গ্রন্থ আবু দাউদ শরীফের একখানা হাদিসের অংশবিশেষ হচ্ছে, ‘রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন, জেনো রেখো, কোনো মুসলিম যদি কোনো অমুসলিমের উপর নির্যাতন-নিপীড়ন চালায়, তার অধিকার খর্ব করে, তার থেকে জোরপূর্বক কোনো কিছু ছিনিয়ে নেয়, তাহলে আমি মোহাম্মদ কাল কেয়ামতের দিন আল্লাহর আদালতে সেই মুসলিমের বিরুদ্ধে এবং অমুসলিমের পক্ষে অবস্থান নেবো।’ এর চেয়ে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দৃষ্টান্ত আর কী হতে পারে? আর এটাই হচ্ছে ইসলামের আদর্শ, ইসলামের শিক্ষা। এর বিপরীতে যা কিছু হচ্ছে তার সাথে ইসলাম এবং মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের আদর্শের ন্যূনতম কোনো সম্পর্ক নেই।

তাই আজকে পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম দিবসে আমাদের দাবি এবং প্রত্যাশা থাকবে, আমরা যেনো প্রিয় নবীর আদর্শকে অনুসরণ করি, তাঁর জীবনাদর্শকে চর্চা করি এবং আমাদের নিজেদের জীবনে এর প্রতিফলন ঘটাই।

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়