চাঁদপুর, রোববার, ২৮ নভেম্বর ২০২১, ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২২ রবিউস সানি ১৪৪৩  |   ২১ °সে
আজকের পত্রিকা জাতীয়আন্তর্জাতিকরাজনীতিখেলাধুলাবিনোদনঅর্থনীতি শিক্ষা স্বাস্থ্য সারাদেশ ফিচার সম্পাদকীয়
ব্রেকিং নিউজ
  •   চাঁদপুর প্রেসক্লাবের ফ্যামিলি ডে অনুষ্ঠানে শিক্ষামন্ত্রী বলেছেন বছরের এ একটি দিন সাংবাদিকরা উপভোগ করেন, এদিন তাঁদের মিলনমেলা ঘটে

প্রকাশ : ২০ অক্টোবর ২০২১, ০০:০০

কোরআন ও হাদীসের আলোকে ঈদে মিলাদুন্নাবী (সাঃ)

মুফতি মুহাঃ আবু বকর বিন ফারুক

কোরআন ও হাদীসের আলোকে ঈদে মিলাদুন্নাবী (সাঃ)
অনলাইন ডেস্ক

অভিধানের দৃষ্টিতে মীলাদ: মীলাদ, মওলেদ এবং মওলুদ এই তিনটি শব্দের আভিধানিক অর্থ নিন্মরূপ। আরবী ভাষার সর্বশ্রেষ্ঠঅভিধান লেসানুল আরব ও বৃহত্তম অভিধান তাজুল আরুছ, কামুছ, মুহকাম, তাহজীব, আছাছ, ছেহাহ ও জওহরী এবং মিছবাহ প্রভৃতি লোগাতে (অভিধানে) বর্ণিত আছে যে, অলীদ, মওলুদ শব্দের অর্থ নবজাত শিশু। মওলুদূর রেজাল অর্থ মানুষের জন্মকাল, জন্মস্থান, মীলাদুর রেজাল মানুষের জন্মকাল, জন্ম দিন। মীলাদ শব্দটি জন্মকাল ও জন্মদিন ব্যতীত অন্য কোন অর্থে ব্যবহৃত হয় না। সুতরাং মীলাদুন্নবী, মাওলেদুন্নবী হযরত মুহাম্মদ মুস্তফা এর জন্ম কাহিনী ও তৎসংশ্লিষ্ট ঘটনাবলী আলোচনা করা। ঐ মজলিশটি ঈদে মীলাদুন্নবী নামে খ্যাতি অর্জন করেছে।

ইসলামী পরিভাষায় প্রচলিত মীলাদ শরীফের রূপরেখা :

নূরে মুহাম্মদী সৃষ্ট জগতের শ্রেষ্ঠ প্রথম সৃষ্ট। এ নূর কিভাবে সৃষ্টি হয়ে ‘প্রথম কোথায় কিভাবে ছিল, অন্যান্য সৃষ্ট জগত এ নূর হতে কিভাবে সৃষ্টি হলো, এক কথায়, এ নূর মুবারক দেহ পিঞ্জিরের মাধ্যমে ইহজগতে প্রত্যক্ষ আগমন করার পূর্বেকার ঘটনাবলী সংক্রান্ত আলোচনা আহুত অনুষ্ঠানকে মীলাদ মাহফিল বলে। এর জলন্ত প্রমাণ কোরআন পাকে বহু আয়াত ও হাদীছ সমূহে উল্লেখ রয়েছে। হযরত রাসূল মকবুল (সাঃ) স্বয়ং মজলিস কায়েম করতঃ নিজের সৃষ্টি, নছবনামা ও তাঁর নূর মোবারক হতে জগত সৃষ্টির কথা উল্লেখ করেছেন এবং ছাহাবায়ে কেরামকে মজলিস কায়েম করে বিজাতির সামনে হুজুরের প্রশংসা করার অনুমতি প্রদান করেছেন। এ'টি সুন্নাতে রাসূল ও সুন্নাতে ছাহাবার অন্তর্ভুক্ত। সুতরাং মীলাদ শব্দের অর্থ প্রসব করানোর যন্ত্র বলে যারা মন্তব্য করেছেন, ইহা তাদের ধৃষ্টতা ও মূর্খতা ব্যতীত আর কিছুই নয়। সত্যিকার কোরআন হাদীছের জ্ঞানী ব্যক্তিগণ এ ধরণের জঘন্য উক্তি করতে পারেন না। বিশেষতঃ নবী প্রেমিকরা সর্বদাই মুহাম্মাদ (সাঃ) জন্ম - লগ্ন কাহিনী, ঐ সময়কার আশ্চর্যজনক ঘটনাবলী প্রকাশ করে প্রীত ও আনন্দিত হন। ধৃষ্টতা পোষণকারী ব্যক্তিগণের হুযুর পাক এর সাথে আন্তরিক শত্রুতা থাকার ইঙ্গিত বহন করছে যার পরিণাম অত্যন্ত খারাপ। ইয়া আল্লাহ ! তাদেরকে সুমতি প্রদান করুন এবং মীলাদ পাঠ ও মীলাদ মাহফিল কায়েম করার তাওফীক দান করুন।

পবিত্র কোরআনুল কারীমে নবী হযরত ইয়াহইয়া ইবনে জাকারিয়া (আঃ) সম্পর্কে বলেন-

তার উপর শান্তি যেদিন সে জন্মেছে, যেদিন তার মৃত্যু হবে আর যেদিন সে জীবন্ত হয়ে উত্থিত হবে।(১৯ সূরা মারইয়াম -১৫)

এ আয়াত দ্বারা এটাই প্রমানিত, নবীরা যেদিন জন্ম গ্রহন করেন, যে দিন ইন্তেকাল হয় এবং হাশর ময়দানে যেদিন পুনরায় উদিত হবেন। এ অবস্থাগুলোতে মহান আল্লাহর রহমত শান্তি নাযিল হয়।

তাই আমাদের নবী (সাঃ) এর জন্ম দিনেও আল্লাহে শান্তি রহমত নাযিল হয়। ঐ সময়টা বরকতময় সময়।

ঈসা (আঃ) সম্পর্কে কুরআনে এসেছে -

আমার উপর আছে শান্তি যেদিন আমি জন্মেছি, যেদিন আমার মৃত্যু হবে আর আমি যেদিন জীবিত হয়ে উত্থিত হব।’ (১৯ সূরা মারইয়াম - ৩৩) ঈসা নবীর বেলায় ও একই কথা। নবীদের জন্মে শান্তি নাযিল হয়।

মারইয়াম-তনয় ‘ঈসা বললেন, ‘হে আল্লাহ্ আমাদের রব! আমাদের জন্য আসমান থেকে খাদ্যপূর্ণ খাঞ্চা পাঠান; এটা আমাদের ও আমাদের পূর্ববর্তী ও পরবর্তি সবার জন্য হবে আনন্দোৎসব স্বরুপ এবং আপনার কাছ থেকে নিদর্শন। আর আমাদের জীবিকা দান করুন; আপনিই তো শ্রেষ্ঠজীবিকাদাতা।’(৫ মায়িদাহ -১১৪)

ঈসা (আঃ) এর উম্মতের জন্য আকাশ থেকে খাদ্যপূর্ণ খাঞ্চা পাঠালে এটা তাদের জন্য খুশির কারণ হবে।

এ জন্য ঈসা (আঃ) বললেন এটা আমাদের ও আমাদের পূর্ববর্তী ও পরবর্তি সবার জন্য হবে আনন্দোৎসব স্বরুপ এবং আপনার কাছ থেকে নিদর্শন।

তাহলে আমাদের কাছে আমাদের প্রিয় নবী (সাঃ) কে যেদিন পৃথিবীতে পাঠিয়েছেন সেদিন উম্মতের জন্য সবচেয়ে বেশি খুশির কারণ।

তাই আমরা খুশি হিসেবে এদিনকে ঈদে মিলাদুন্নাবী (সাঃ) বলি।

উম্মত হয়ে নবীর আগমনে খুশি হবে না, তাহলে কি হবে?

শয়তান নবীর জন্মে খুশি হতে পারেনা।

সে সেদিন বিকট ভাবে চিৎকার করে।

ইমরান নবীর স্ত্রী হান্নাহ বিনতে ফাকুদকে বিবি মরইয়াম ও তৎপুত্র ঈসা নবীর জন্মের সুসংবাদ জানালেন। ইমরান নবীর স্ত্রীর গর্ভধারণ ও প্রসবের কথা উল্লেখ এবং মরইয়াম ও তৎপুত্র হযরত ঈসাকে শয়তানের হাত হতে রক্ষার জন্য দোয়া প্রার্থনা করা, তদুপরি সন্তানের নাম রাখার কথা কোরআন পাকে উল্লেখ রয়েছে। যেমন, সূরা আল ইমরান ৩৪/৩৫ নং আয়াত-

অনুবাদ : ইমরান নবীর স্ত্রী হান্নাহ বিনতে ফাকুদ বললেন, ওহে প্রভু ! আমি তোমার জন্য আমার পেটে যে সন্তান রয়েছে উহা মান্নত করলাম এবং মুক্ত ও আজাদ করলাম। ওহে প্রভু ! আমার মান্নত কবুল কর। তুমি একমাত্র শ্রবণকারী ও অন্তর্যামী। অতঃপর ইমরান - স্ত্রী যখন সন্তান (মরইয়াম) কে প্রসব করেন, অথচ আল্লাহ যথেষ্ট জানেন ; ইমরান - স্ত্রী কি প্রসব করেছেন। তখন সে আল্লাহকে জানান ; ওহে প্রভু ! আমি কন্যা সন্তান প্রসব করেছি, পুরুষ সন্তান তো মেয়ের ন্যায় নয়। আমি ঐ কন্যা সন্তানটির নাম মরইয়াম রেখেছি। ঐ মেয়ে সন্তানকে এবং ঐ মেয়েটির (সন্তানটির) সন্তানকে শয়তানের প্রতারণা হতে বাঁচার জন্য তোমার কাছে আশ্রয় প্রার্থী।

সুরায়ে মরইয়াম ৭ ম আয়াতে যাকারিয়া (আঃ) এর বিবির গর্ভধারণ ও সন্তান লাভের কথা এবং সন্তানের নামকরণ ব্যাপারে উল্লেখ রয়েছে - অনুবাদঃ- ওহে যাকারিয়া ! আমি তোমাকে ইয়াহ - ইয়া নামক সস্তানের সুসংবাদ দিচ্ছি। এ নাম ইতিপূর্বে কারো জন্যে স্থির করিনি। হযরত যাকারিয়া (আঃ) এতে বিস্মিত হয়ে বললেন ; ওহে প্রভু ! আমার কি করে সন্তান লাভ হবে? অথচ আমার স্ত্রী বাঁঝা, এদিকে আমি বৃদ্ধলোক। আল্লাহ পাক বললেন- তোমার প্রভুর জন্য ইহা অতি সহজসাধ্য। তোমাকে পূর্বে যখন সৃষ্টি করেছি তখন তুমি কিছুই ছিলেন। তিনি বললেন, প্রভু ! আমার জন্য এ ব্যাপারে একটি নিদর্শন প্রদান করুন। তদুত্তরে মহান আল্লাহ বললেন, নিদর্শন হলো তুমি একাধারে ৩ রাত ব্যাপী মানুষের সাথে কথাবার্তা বলতে পারবে না। তাছাড়া হযরত মরইয়ামের গর্ভধারণ ও প্রসব বেদনার কথা কোরআন পাকে উল্লেখ রয়েছে।

সূরায়ে মরইয়াম ১৬-২২ আয়াতগুলোতে ঘোষণা করা হয়েছে - অনুবাদঃ- বিবি মরইয়ামের কথা কোরআন পাকে স্মরণ করুন। যখন বিবি

মরইয়াম আপনজন হতে বিচ্ছিন্ন হয়ে পূর্ব দিকে গেলেন এবং তাদের মধ্য হতে নিজেকে পর্দায় রাখলেন। তখন আমি মহান আল্লাহ তাঁর নিকট আমার রুহুল আমিন (জিব্রাঈল) কে পাঠালাম। জিব্রাঈল (আঃ) বিবি মরইয়ামের নিকট একজন যুবক বেশে উপস্থিত হলেন। এতে বিবি মরইয়াম বললেন, আমি পরম দয়াময়ের নিকট তোমার থেকে আশ্রয় প্রার্থনা করছি, যদিও তুমি মুত্তাকী পরহেজগার হওনা কেন? তদুত্তরে রূহুল আমীন (ফেরেশতা) বললেন, নিশ্চয়ই জেনে রেখ আমি তোমার প্রভুর দূত। আমাকে তোমাকে একটি পবিত্র সন্তান প্রদানের জন্য পাঠানো হয়েছে। মরইয়াম বললেন, আমার কি করে সন্তান লাভ হবে? অথচ আমাকে কোন মানুষ এ যাবত স্পর্শ করেনি এবং আমি ব্যভিচারিনী, যিনাকারীনী নই। রূহুল আমীন (ফেরেশতা) বললেন, সন্তান প্রদান করা হবে। তোমার প্রভু বলেন, উহা আমার জন্য সহজ সাধ্য। আমি উক্ত কাজটিকে মানুষের জন্য নিদর্শন ও আমার রহমত হিসেবে করতে চাই এবং ইহাই করা সাব্যস্ত হয়েছে। সুতরাং মরইয়াম গর্ভবর্তী হলেন, উক্ত গর্ভ নিয়ে বায়তুল মুকাদ্দাস হতে বহু দূরে বাসস্থান বানালো। অতঃপর বিবি মরইয়ামের প্রসব বেদনায় তাকে খেজুর গাছের তলায় পৌঁছালো। মরইয়াম বেদনায় অস্থির হয়ে বলতে লাগল, হায়রে এঘটনার পূর্বেই যদি আমি মৃত্যুবরণ করতাম তাহলে আত্মভোলা হতাম।

উপরন্তু উক্ত কোরআন পাকে হযরত মূসা (আঃ) এর মায়ের গর্ভ প্রসব করার কথা ও দুধ পান করানোর কাহিনী বর্ণিত আছে। অনুবাদঃ- মহান আল্লাহ বললেন, আমি মূসা নবীর মায়ের নিকট বার্তা পাঠিয়েছি যে, তুমি মূসাকে দুধ পান করাও।

উল্লেখিত আয়াতে হযরত ইসহাক, ইসমাঈল, মরইয়াম, ঈসা, ইয়াহইয়া ও হযরত মূসা এবং আমাদের নূর নবী মুহাম্মাদুর রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এর সংক্ষিপ্ত নছবনামা সহ বেলাদত (জন্ম) হতে নবুওয়াতের পূর্বের, বরং জন্ম - পূর্ব ইতিহাস বর্ণিত হয়েছে। যদি এ বর্ণনা অনাবশ্যক বস্তু হতো, তাহলে কোরআন পাকে ইহা বর্ণনার কারণ কি?

মূসা নবীর সম্পর্কে কুরআনে এসেছে -

মূসাকে আমি আমার নিদর্শনাবলীসহ প্রেরণ করেছিলাম (এবং বলেছিলাম,) তোমার সম্প্রদায়কে অন্ধকার হতে আলোতে বের করে আনো এবং

তাদেরকে আল্লাহর দিনগুলি স্মরণ করিয়ে দাও।

এতে তো নিদর্শন রয়েছে প্রত্যেক পরম ধৈর্যশীল ও পরম কৃতজ্ঞ ব্যক্তির জন্য। (১৪ সূরা ইব্রাহীম - ৫)

স্মরণ কর, যখন মূসা তার সম্প্রদায়কে বলেছিল, ‘তোমরা তোমাদের প্রতি আল্লাহর নি‘মাতের কথা স্মরণ কর যখন তিনি তোমাদেরকে ফির‘আওনী গোষ্ঠী থেকে রক্ষা করেছিলেন যারা তোমাদেরকে জঘন্য রকমের শাস্তিতে পিষ্ট করছিল। তোমাদের পুত্রদেরকে তারা হত্যা করত আর তোমাদের নারীদেরকে জীবিত রাখত। এটা ছিল তোমাদের জন্য আল্লাহর পক্ষ হতে এক কঠিন পরীক্ষা।(১৪ সূরা ইব্রাহীম - ৬)

‘তাদেরকে আল্লাহর দিনগুলি স্মরণ করিয়ে দাও।’ (কোরআন)

এ আয়াত দ্বারা কতিপয় স্মরণীয় দিন, রহমত পূর্ণ দিন। আল্লাহ করুনা করেছেন এমন কতিপয় দিনের কথা স্মরণ করার কথা কুরআনে আছে।

তাই নবী (সাঃ) যেদিন পৃথিবীতে তাশরীফ এনেছেন, উম্মতের জন্য ঐ দিন স্মরণ করা ঈমানের দাবী।

আল্লাহর নেয়ামতের স্মরণ করা।

পবিত্র কুরআনে এসেছে -

আর স্মরণ কর, ‘আদ জাতির (ধ্বংসের) পরে তিনি তোমাদেরকে (তোমাদের আগের লোকদের) স্থলাভিষিক্ত করেছেন। আর তিনি তোমাদেরকে যমীনে এমনভাবে প্রতিষ্ঠিত করেছেন যে, তোমরা সমতল ভূমিতে প্রাসাদ নির্মাণ ও পাহাড় কেটে ঘরবাড়ি তৈরী করছ।

কাজেই তোমারা আল্লাহ্র অনুগ্রহ স্মরণ কর

এবং যমীনে বিপর্যয় সৃষ্টি করে বেড়িও না।’(৭ সূরা আ'রাফ - ৭৪)

আল্লাহর নেয়ামত বেশি বেশি স্মরণ করা -

আর তুমি তোমার প্রতিপালকের অনুগ্রহের কথা ব্যক্ত কর।(৯৩ সূরা দুহা -১১)

নবী (সাঃ) সবচেয়ে বড় নেয়ামত -

আল্লাহ ঈমানদারদের প্রতি অনুগ্রহ করেছেন নবীকে পাঠিয়ে।

কুরআনে এসেছে -

আল্লাহ মুমিনদের প্রতি অবশ্যই অনুগ্রহ করেছেন যে, তিনি তাদের নিজেদের মধ্য থেকে তাদের কাছে রাসূল পাঠিয়েছেন, যিনি তাঁর আয়াতসমূহ তাদের কাছে তেলাওয়াত করেন, তাদেরকে পরিশোধন করেন এবং কিতাব ও হেকমত শিক্ষা দেন, যদিও তারা আগে স্পষ্ট বিভ্রান্তিতেই ছিল। (৩ সূরা আলে ইমরান -১৬৪)

ইব্রাহীম (আঃ) এর দোয়া -

‘হে আমাদের রব! আর আপনি তাদের মধ্য থেকে তাদের কাছে এক রাসূল পাঠান, যিনি আপনার আয়াতসমূহ তাদের কাছে তিলাওয়াত করবেন ; তাদেরকে কিতাব ও হেকমত শিক্ষা দেবেন এবং তাদেরকে পরিশুদ্ধ করবেন আপনি তো পরাক্রমশালী, প্রজ্ঞাময়’।

(২ সূরা বাকারা -১২৯)

হাদীসে বর্ণিত আছে, রাসূল সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন : আমি আমার সূচনা বলে দিচ্ছি, আমার পিতা ইবরাহীম ‘আলাইহিস সালাম-এর দোআ, ঈসা '‘আলাইহিস সালাম-এর সুসংবাদ এবং আমার মা স্বপ্নে দেখেছিলেন যে, তার থেকে একটি আলো বের হল, যে আলোতে সিরিয়ার প্রাসাদসমূহ আলোকিত হয়েছে। [মুসনাদে আহমাদঃ ৫/২৬২] ঈসা ‘আলাইহিস সালাম-এর সুসংবাদের অর্থ তার এ উক্তি,কুরআনের ভাষায় -

“আমি এমন এক নবীর সুসংবাদদাতা, যিনি আমার পরে আসবেন। তার নাম আহমাদ”। [সূরা আস-সাফঃ ৬] তার জননী গর্ভাবস্থায় স্বপ্নে দেখেন যে, তার পেট থেকে একটি নূর বের হয়ে সিরিয়ার প্রাসাদসমূহ আলোকোজ্জ্বল করে তুলেছে। কুরআনে রাসূল সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর আবির্ভাবের আলোচনা প্রসঙ্গে দু’জায়গায়, সূরা আলে-ইমরানের ১৬৪তম আয়াতে এবং সূরা জুমুআয় ইবরাহীম ‘আলাইহিস সালাম-এর দোআয় উল্লেখিত ভাষারই পুনরাবৃত্তি করা হয়েছে। এভাবে ইংগিত করা হয়েছে যে, ইবরাহীম ‘আলাইহিস সালাম যে নবীর জন্য দোআ করেছিলেন, তিনি হচ্ছেন শেষ নবী মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু '‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম।

অনুগ্রহে আনন্দ প্রকাশ :-

নবী (সাঃ) এর আগমনে খুশি -

বলুন, ‘এটা আল্লাহ্র অনুগ্রহে ও তাঁর দয়ায়; কাজেই এতে তারা যেন আনন্দিত হয়।’ তারা যা পুঞ্জীভুত করে তার চেয়ে এটা উত্তম।(১০ সূরা ইউনুস -৫৮)

নবী (সাঃ) উম্মতের কাছে সবচেয়ে বড় অনুগ্রহ এটা কোন উম্মত অস্বীকার করতে পারেনা।

তাই নবী (সাঃ) আমাদের কাছে অনেক বড় নেয়ামত এজন্য আমরা এদিনকে ঈদে মিলাদুন্নাবী (সাঃ) হিসেবে পালন করি।

নবীজি (সাঃ) রহমতের নবী -

কুরআনে এসেছে -আর আমরা তো আপনাকে সৃষ্টিকুলের জন্য শুধু রহমতরূপেই পাঠিয়েছি। (২১ সূরা আম্বিয়া -১০৭)

নবী কারীম (সাঃ) সমগ্র জগতের জন্য রহমত। তাই নবী (সাঃ) এর আদর্শ অনুসরণ করা তাঁকে ভালোবাসার মাধ্যমে রহমত লাভ করা যায়।

রাসূল ও নবীদের বৃত্তান্ত শুনলে অন্তর দৃঢ় হয় -

রাসূলকে নবীদের বৃত্তান্ত শুনানো হয়েছে অন্তর দৃঢ় হওয়ার জন্য।

রাসূলদের যে সব সংবাদসমূহ আমি তোমার কাছে বর্ণনা করলাম, এর দ্বারা আমি তোমার দিলকে মজবুত করছি, এতে তুমি প্রকৃত সত্যের জ্ঞান লাভ করবে আর মু’মিনদের জন্য এটা উপদেশ ও স্মারক। (১১ সূরা হুদ-১২০)

নবীদের বৃত্তান্ত শুনলে দিলে ঈমান মজবুত হয়, তাই আমাদেরকে আমাদের প্রিয় নবী (সাঃ) এর জন্মে তাঁর শুরু থেকে সমগ্র জীবনী আলোচনার মাধ্যমে উম্মতের দিলে ঈমান মজবুত হবে।

এ জন্য মিলাদুন্নাবী (সাঃ) এ আমরা প্রিয় নবী (সাঃ) এর জীবনী আলোচনা করে ঈমানী শক্তি জামিল করি।

আল্লাহ ও ফেরেশতাগণ নবীর প্রতি সালাত পড়েন। এবং ঈমানদারদেরকেও সালাত ও সালাম পড়ার তাগিদ দেন -নিশ্চয় আল্লাহ নবীর প্রতি অনুগ্রহ করেন এবং তাঁর ফিরিশতাগণও নবীর জন্য অনুগ্রহ প্রার্থনা করে। হে বিশ^াসীগণ! তোমরাও নবীর জন্য অনুগ্রহ প্রার্থনা কর এবং তাকে উত্তমরূপে অভিবাদন কর। (দরূদ ও সালাম পেশ কর।) (৩৩ সূরা আহযাব -৫৬)

উপরোক্ত আলোচনা দ্বারা এটাই প্রতীয়মান হয় যে, নবী রাসূলদের জন্মের কথা পবিত্র কোরআনুল কারীমে আছে। নবী রাসূলদের জন্মে আল্লাহ শান্তি নাযিল করেন। নির্দিষ্ট দিনকে স্মরণ করা যায়। কোন নিয়ামত লাভ করলে খুশি হওয়া যায়।

মীলাদ শরীফ হাদীছ শরীফ হতে প্রমাণিত : তিরমিজী শরীফ ২/২০৪ পৃষ্ঠায় মীলাদুন্নবী অধ্যায়ে হযরত মুত্তালিব বিন আব্দুল্লাহ আপন দাদা কায়েস বিন মাখরিমা (রাঃ) হতে বর্ণনা করেছেন। অনুবাদঃ- আব্দুল্লাহর পুত্র মুত্তালিব নিজ দাদা কায়েস বিন মাখরিমা (রাঃ) হতে বর্ণনা করেছেন, তিনি বলেছেন, আমি ও হযরত নবী করীম (সাঃ) হাতী সালে জন্ম গ্রহণ করেছি। হযরত ওছমান (রাঃ) কিবাছ বিন আশইয়ামকে প্রশ্ন করেন, আপনাদের উভয়ের মধ্যে বয়সে কে বড়? তিনি উত্তরে বলেন, বয়সের দিক দিয়ে আমি হযরত নবী করীম (সাঃ) হতে বড়, কিন্তু সম্মানে ও মর্যাদার দিক দিয়ে তিনি আমার চেয়ে বড়।

অত্র হাদীছ হতে প্রমাণিত হলো ছাহাবায়ে কেরাম হযরত নবী করীম (সাঃ) এর জন্ম কাহিনী পরস্পরের মধ্যে আলোচনা করতেন।

ছহীহ বুখারী শরীফ ১/২০ পৃষ্ঠায় উমাইয়্যা খলীফা হযরত ওমর বিন আব্দুল আযীয হতে বর্ণিত আছে, তিনি বিজিত রাষ্ট্র প্রধানের নিকট এ মর্মে পত্র লিখে পাঠিয়েছেন। যথাঃ অনুবাদঃ- হযরত নবী করীম (সাঃ) এর হাদীছগুলির প্রতি যত্নবান হও ও সমুদয় হাদীছগুলি লিপিবন্ধ কর। কেননা, আমার ভয় হচ্ছে ইলমে দ্বীন ধ্বংস ও বিলীন হওয়ার এবং ওলামায়ে কেরামের ইহলোক ত্যাগ করার। তাই তোমরা হাদীছ শরীফের আলোচনা মজলিস কায়েম কর যাতে অজ্ঞ লোক বিজ্ঞ হতে পারে। কেননা, হাদীছ শরীফ ধ্বংসের মূল কারণ হলো, তাবলীগ ও প্রচার বন্ধ করে দেয়া।

ইহা ধ্রুব সত্য যে, মীলাদ অনুষ্ঠান হাদীছ শাস্ত্র প্রচার করার একটি অন্যতম মাধ্যম ও এতে ফায়দা ব্যাপক।

ঈদে মীলাদুন্নবী উদযাপন প্রসঙ্গ : বর্তমান সমাজে দেখা যায়, একদল লোক পবিত্র রবিউল আউয়াল মাসে ঈদে মীলাদুন্নবীর মাহফিল উদ্যাপন করেন না। বরং যারা এ পবিত্র মাহফিল কায়েম করে হুযুর পাক এর জন্মলগ্ন ইতিহাস বর্ণনা করে আনন্দ প্রকাশ করেন, সভার শেষে খুশীতে আল্লাহর অনুগ্রহ ও হযরত রাসূল করীম (সাঃ) নেক নজর হাছিলের উদ্দেশ্যে আর্থিক দান ও তাবারক প্রদান করেন, এসব কাজকে জঘন্যতম গুনাহ মনে করেন। যার ফলে জনমনে সন্দেহের সৃষ্টি হওয়ায় অনেকেই এ নেককাজে যোগদান থেকে বিরত রয়ে মীলাদুন্নবী মাহফিলের বিশেষ ছওয়াব হতে মাহরূম হচ্ছে।

কোরআন পাকে ঈদ শব্দটি এসেছে। অপরদিকে হাদীছ শরীফে বহু জায়গায় হযরত রাসূল মকবুল (সাঃ) ও ছাহাবায়ে কেরাম ঈদ শব্দ ব্যবহার করেছেন। বিশেষতঃ জন্মকে কেন্দ্র করে স্বয়ং রাসূল মকবুল (সাঃ) এর জন্ম উৎসব বা ঈদে মীলাদুন্নবী করে উম্মতগণকে উহা পালনের জন্য উৎসাহিত করেছেন।

হুযুরের (সাঃ) এর প্রতি যে, মহান আল্লাহর মীলাদুন্নাবীর আয়াত ও হাদীছ সমূহ বয়ান করার নির্দেশ ছিল উহা তিনি গোপন করেননি। মজলিস কায়েম করে স্বয়ং এবং কোন কোন সময় বিশেষ বিশেষ ছাহাবায়ে কেরাম দ্বারা স্বয়ং উপস্থিত থেকে বর্ণনা করায়ে নিজে ও ছাহাবায়ে কেরাম খুশী প্রকাশ করেছেন এবং কিয়ামত পর্যন্ত যত উম্মতে মুহাম্মদীর আগমন হবে তাদেরকেও বর্ণনা করতে ও আনন্দ প্রকাশ করতে বলে গেছেনন। আশাকরি তা পড়ে শুনে প্রীত ও আনন্দিত হবেন ও সংশোধন একথা দিবালোকের ন্যায় সত্য। মহান আল্লাহ মানবজাতির উপর যখন যে কোন মস্তবড় নিয়ামত অর্পণ করেন, জাতিধর্ম নির্বিশেষে মানবতার দৃষ্টিতে সাধারণতঃ মানুষ উহার কৃতজ্ঞতা স্বীকার করেন। এমন কি সকলের সমন্বয়ে ঐ দিনটিকে কেন্দ্র করে প্রতি বছর ঈদ বা উৎসব উদযাপন করে থাকেন। শরীয়তে আদিকাল থেকে আরম্ভ করে অদ্যাবধি ঐ উৎসব প্রতিপালিত হয়ে আসছে। আমি সকলের এদিকে দৃষ্টি আকর্ষণ করে পূর্বেকার নজীর গুলি উল্লেখ করার ইচ্ছা করছি।

যারা বলে ঈদ মাত্র দু'টি ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আযহা। বরং ঈদ হচ্ছে মোট নয়টি। আশুরার দিনটি ঈদের দিন।

মায়েদা অবতীর্ণের দিন ঈদ।

জুমআ ও আরাফাতের দিন ঈদের দিন।

শবে বরাত ও শবে ক্বদর ঈদ।

রাসূল (সাঃ) জন্ম দিন ঈদের দিন।

হযরত রাসূল মকবুল (সাঃ) এর (জন্ম দিন) ঈদের দিন :

এখন আসল কথা হচ্ছে- সাইয়্যেদুল আম্বিয়া ওয়াল মুরসালীন শাফীউল মুজনেবীন, রহমাতুললিল আলামীনের মীলাদুন্নবীর ঈদ উদযাপন করা শরীয়ত সমর্থিত কিনা? প্রতি উত্তরে বলছি, “ঈদে মীলাদুন্নবী” উদযাপন করা সুন্নাতে রাসূল, সুন্নাতে ছাহাবা ও সুন্নাতে তাবেয়ীন এবং সুন্নাত অদ্যাবধি বিশ্ব মুসলিম প্রতিপালন করে আসতেছেন। এ হিসেবে এটাকে ইজমায়ে উম্মতের সুন্নাত বলা হয়। যেহেতু মহান আল্লাহর বাণী অনুবাদঃ- ওহে নবী ! আল্লাহর দান ও দয়ার কথা বলুন। লোকজন উহা শুনে যেন খুশী হন উক্ত খুশী উদযাপন দুনিয়ার সঞ্চিত সর্বপ্রকার সম্পদ হতে উত্তম।

আবূ শায়খ ইবনে আব্বাস (রাঃ) হতে বর্ণনা করেছেন, নিশ্চয়ই ফযল অর্থ ইলম, রহমত অর্থ মুহাম্মদ (সাঃ)।

খতীব ও ইবনে আসাকের ইবনে আব্বাস হতে ফযল শব্দের তাফসীর নবী করীম (সাঃ) বলেছেন, রহমত অর্থ হযরত আলী বলেছেন। তবে সর্বজন বিদিত কথা, রহমত হল নবী পাকের ছিফাত।

সকলে জানেন জন্ম উৎসবের প্রথম ধাপ হচ্ছে আকীকা। হযরত রাসূল মকবুল (সাঃ) এর জন্মের ৭ ম দিবসে তার দাদা আব্দুল মুত্তালিব একটি দুম্বা আকীকা করেছেন। মজলিস ডেকে সকলের মেহমানদারী করে নাতীর নামকরণ করলেন “মুহাম্মাদ”। এতে প্রশ্ন উঠল এ নাম তো আপনার পূর্ব পুরুষের কারো নাম ছিল না। তিনি উত্তরে বললেন, আমার ইচ্ছে হলো, যেন আসমানে এর প্রশংসা করেন আল্লাহ, আর যমীনে প্রশংসা করেন মানুষ। সীরতে হলবীয়া ১ ম খণ্ড ৯৩ পৃষ্ঠায়।

বায়হাকী শরীফে হযরত আনাস (রাঃ) হতে বর্ণিত আছে, অনুবাদঃ নিশ্চয়ই হযরত রাসূল মকবুল (সাঃ) নবুওয়াত প্রাপ্তির পরে মদীনায় গিয়ে নিজের আকীকা করেছেন। অথচ হাদীছ শরীফে বর্ণিত আছে, তার জন্মের ৭ ম দিবসে তার দাদা আব্দুল মুত্তালিব আকীকা করেছেন। আকীকা দু'বার করা হয় না। এমতাবস্থায় মুহাদ্দেছীন উভয় হাদীছের মধ্যে সামঞ্জস্য রাখার জন্য এ বর্ণনা দিয়েছেন যে, মহান আল্লাহ তাকে রাহমাতুলল্লিল আলামীন করেছেন বিধায়, শুকরিয়া স্বরূপ এরূপ করেছেন এবং উম্মতগণকে এরূপ করার বিধান করলেন। যেমন তিনি নিজের উপর দরূদ শরীফ পাঠ করেছেন। তা শুনে যেন উম্মতগণ দরূদ পড়ার জন্য আগ্রহান্বিত হন। সুতরাং মীলাদুন্নবীর জন্য ঐ আয়াত ও এ হাদীছ শরীফই যথেষ্ঠ।

একটা সাধারণ কথা সকলেই জানেন, রমযানুল মোবারকের আগমনে রোযার ফজীলত ও রোযা না রাখার কুফল সম্পর্কে খুৎবায় বিশেষ ভাবে উল্লেখ করা হয়। তদ্রূপ জিলহজ্জ মাসে হজ্জের ফজীলত ও হজ্জের যাবতীয় আহকামের বর্ণনা থাকে। অথচ এসব বর্ণনার বাহিরে অন্যান্য বর্ণনাও থাকে। তদ্রূপ মাহে রবিউল আউয়ালে হুযুরের জন্ম মাস হিসেবে জন্ম বৃত্তান্ত সংক্রান্ত আয়াত ও হাদীছ শরীফ সমূহের আলোচনা করা অবশ্য কর্তব্য। মহান আল্লাহর বাণী সুরায়ে দোহায় বর্ণিত আছে -”আপনি আপনার প্রভুর প্রদত্ত নিয়ামত লোক সমাজে প্রচার করুন।" এতে আল্লাহ পাকের নিয়ামতের শুকরিয়া আদায় করা হয়।

সকলে জানেন আয়াতের শানে নুযূল খাছ, হুকুম আম। সে হিসেবে সকল উম্মতের উপর খোদা প্রদত্ত নিয়ামতের কথা মজলিস কায়েম করে বর্ণনা করা ওয়াজিব।

অন্য আয়াতে বর্ণিত আছে- “আমার প্রদত্ত নিয়ামতের শুকুর কর, অবমাননা কর না।” আপনার কর্তব্য উম্মতের সামনে উহা প্রচার করা। আর তাদের কর্তব্য উহা শুনে আনন্দিত হওয়া। কুরআনে এরশাদ হয়েছে - অনুবাদঃ হে নবী বলুন মহান আল্লাহর দয়া ও অনুগ্রহের কথা এবং সে অনুগ্রহ ও দয়ার কথা শুনে তাদের আনন্দ প্রকাশ করা উচিত।”

তাফসীরে রূহুল মায়ানী ১১ খ- ২০৫ পৃষ্ঠায় লিখিত আছে। খুশী হওয়া কোন প্রিয় ও পছন্দনীয় বস্তু লাভ করার ফলে অন্তরে যে আনন্দ পাওয়া যায় সেটাকে ফারহুন বলা হয়। এর অর্থ হলো ঈমানদারগণের আল্লাহর অনুগ্রহ ও দয়ার উপর আনন্দিত হওয়া উচিত। যেহেতু হযরত ইবনে আব্বাস, হাসান ও কাতাদা বলেছেন- রহমত ও ফাদ্বল। রহমত শব্দ দ্বারা ইসলাম ও কোরআন বুঝানো হয়েছে। অন্য অভিমত হলো যে, রহমত দ্বারা কোরআন, ফাদ্বল দ্বারা হাদীছ শরীফগুলো বুঝানো হয়েছে।

এতে প্রমাণিত হলো, আমার নবী পাকের সম্পর্কে কোরআনুল কারীমে ও হাদীছ শরীফে যে বর্ণনা এসেছে উহা মজলিস কায়েম করে আমরা ওলামায়ে কেরাম বর্ণনা করবো।

আর সাধারণ মুসলমানগণ উহা শ্রবণ করে আনন্দিত হবেন। এরই নাম ঈদে মীলাদুন্নবী।

কোন লোকের জীবনী লিখতে ও বলতে গেলে প্রথমে জন্মলগ্ন ইতিহাস থেকে আরম্ভ করেন। কারণ জন্ম বৃত্তান্ত চিরদিন অতিশয় গুরুত্বপূর্ণ বস্তু। বিশেষ করে যারা জাতির কর্ণধার ও শাসনকর্তা তাদের জন্য কথা সমাজের সামনে তুলে ধরতেই হবে। যেমন মহান আল্লাহ হযরত মরইয়াম, হযরত ঈসা, হযরত মূসা, হযরত ইয়াহইয়া (আঃ) ও আমাদের নবীজীর জন্ম কথা উল্লেখ করেছেন। যেমন- হযরত আব্বাস বিন আব্দুল মুত্তালিব হতে বর্ণিত - একদা হযরত আব্বাস বিন আব্দুল মুত্তালিব হযরত রাসূল মকবুল (সাঃ) এর নিকট আসলেন। মনে হচ্ছিল, তিনি হযরত (সাঃ)-এর আভিজাত্য সম্পর্কে সমালোচনা শুনতে পেয়েছেন তা শুনে হুযুর মিম্বারে দাঁড়িয়ে সকলকে জিজ্ঞেস করলেন, আমি কে? সকলে বলল আপনি আল্লাহর রাসূল। তিনি বললেন, আমি মুহাম্মদ আব্দুল্লাহর পুত্র, আর আব্দুল্লাহ আব্দুল মুত্তালিবের পুত্র। নিশ্চয়ই মহান আল্লাহ মাখলুক সৃষ্টি করে আমাকে তাদের মধ্যে উত্তম মাখলুক করেছেন। অতঃপর তাদেরকে ২ টি দলে আরবে আজমে বিভক্ত করেছেন। তন্মধ্যে আমাকে উত্তম দলে রেখেছেন। অতঃপর তাদেরকে বিভিন্ন গোত্রে পরিণত করেছেন, আমাকে তাদের মধ্যে উত্তম গোত্রে রেখেছেন। অতঃপর তাদেরকে বিভিন্ন পরিবারে পরিণত করেছেন, আমাকে তাদের মধ্যে উত্তম পরিবারের অন্তর্ভুক্ত করেছেন। সুতরাং ব্যক্তি ও পরিবার হিসেবে আমি তাদের মধ্যে শ্রেষ্ঠ। তিরমিযী শরীফ ২ / ২০২ পৃষ্ঠা দ্রষ্টব্য। বর্ণিত হাদীছ দ্বারা বুঝা যায় জন্ম ইতিহাস কত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।

অনুবাদঃ হযরত আব্বাসের পুত্র আব্দুল্লাহ হতে বর্ণিত আদম আলাইহিস সালামের সৃষ্টির দুই হাজার বছর পূর্বে কুরাইশ মহান আল্লাহর দরবারে নূর হিসেবে বিদ্যমান ছিল। ঐ নূর তাসবীহ পাঠে রত ছিল এবং ঐ তাসবীহ শুনে ফেরেশতাগণ তাসবীহ পাঠ করতেন। যখন হযরত আদমকে সৃষ্টি করা হলো, তখন ঐ নূর হযরত আদমের পৃষ্ঠদেশে রেখে দেয়া হলো। হযরত রাসূল (সাঃ) বলেন- আল্লাহপাক আমাকে যমীনে নামিয়ে আদম নবীর পৃষ্ঠদেশে রেখে দিলেন। তথা হতে নূহ নবীর পৃষ্ঠদেশে, তারপর ইব্রাহীম নবীর পৃষ্ঠদেশে তারপর সেখান হতে বিভিন্ন সম্মানিত পীঠ ও পবিত্র উদরে স্থানান্তরিত করেন, অবশেষে আমাকে আমার পিতা - মাতার মাধ্যমে বের করলেন। আমার পিতা - মাতা কখনও ব্যভিচারে লিপ্ত হননি। সীরাতে হালাবিয়া ১ ম খণ্ড ৩০ পৃষ্ঠা এবং তিরমিযী শরীফ ২/৩৬ পৃষ্ঠা দ্রষ্টব্য।

তিরমিযী শরীফের ২ খণ্ড ২০২ পৃষ্ঠায় লিখিত আছে - অনুবাদঃ হযরত আবু হুরায়রা (রাঃ) হতে বর্ণিত আছে, ছাহাবায়ে কেরাম জিজ্ঞেস করলেন, ওহে আল্লাহর হাবীব ! বলুন, আপনি কখন হতে নবী? তিনি বললেন, আমি ঐ সময় হতে নবী যখন আদম (আঃ) আত্মা ও শরীরের মাঝ খানে ছিলেন। অর্থাৎ আমি তার সৃষ্টির পূর্ব থেকেই নবী।

হাকিম ও মাওয়াহিবুলল্লাদুন্নীয়া ১ ম খণ্ড ২৬ পৃষ্ঠায় বর্ণিত আছে - অনুবাদঃ হযরত আয়েশা (রাঃ) হতে বর্ণিত আছে- মক্কা শরীফে এক ইয়াহুদী ব্যবসা করত। হযরত রাসূল কারীম যে রাতে জন্ম গ্রহণ করেন সেরাতে ঐ ইয়াহুদী, কুরাইশী লোকজনকে জিজ্ঞেস করতে লাগল, অদ্যকার রাতে কোন ছেলে সন্তান ভূমি‘হয়েছে কি? তারা বলল আমাদের তা জানা নেই। তখন সে বলল, অদ্য রাত্রে আখেরী উম্মতের এমন এক সন্তান জন্ম নিয়েছে যার দু’কাধের মাঝে একটি চিহ্ন আছে। উহার মধ্যে ধারাবাহিক কতগুলো লোম আছে ঘোড়ার ঘাড়ের চুলের মত। সকলে ইয়াহুদীকে সাথে নিয়ে খোঁজ করতে করতে হুযুর আকরাম এর মায়ের ঘরে এসে পৌঁছলেন। সকলে বললেন, আপনার সন্তান দেখান তখন তাঁর মাতা তাঁকে বের করে দিলেন। তারা পিঠ হতে কাপড় সরায়ে হুবহু ঐ চিহ্ন দেখতে পেল। ইয়াহুদী উহা দেখে বেহুঁশ হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়ল। হুঁশ হওয়ার পরে সকলে জিজ্ঞেস করল, বেহুঁশ হওয়ার কারণ কি? তখন সে বলল আল্লাহর কসম, ইস্রাঈলীর বংশ হতে নবুওয়াত চলে গেল। মাওয়াহেব ১ ম খণ্ড ২৬ পৃষ্ঠা। সুবহানাল্লাহ !

১২ই রবিউল আউয়াল হুযুর আকরাম (সাঃ) এর জন্ম উৎসবের দিন না শোকের দিন :

একথা আলেম ও সকলে জানেন যে, শরীয়তে মোহাম্মদীর দৃষ্টিতে স্বামীর মৃত্যুতে স্ত্রীর শোক করার মুদ্দত চার মাস দশদিন। আর নবী - অলী, পীর - মুর্শেদ, পিতা - মাতা, আত্মীয় - স্বজন, পাড়া - পড়শী সকলের মৃত্যুতে মাত্র মৃত্যু দিন হতে তিন দিন শোক করার হুকুম। সুতরাং ১২ ই রবিউল আউয়াল উপলক্ষে আনন্দ উৎসব করাই নিয়ম শোক করা অনিয়ম বরং জন্ম মাস ও জন্ম দিবস হিসেবে ঈদ উদযাপন এবং ঈছালে ছওয়াব করাই ঈমানের দাবী। আল্লামা সুয়ূতী তদীয় গ্রন্থে, হাফেজ ইবনে হাজর আসকালানী হতে নকল করেছেন -

অনুবাদ : উক্ত ঘটনা হতে এ শিক্ষাই পাওয়া যায় যে, মহান আল্লাহ কোন নির্দিষ্ট দিনে কোন নিয়ামত প্রদান করেন অথবা কোন মুছিবত হতে রক্ষা করেন তজ্জন্য প্রতি বছর ঐ দিনে আল্লাহর শুকরিয়া আদায় করা শরীয়ত সম্মত। উক্ত শুকরিয়া বিভিন্ন রকম ইবাদত যেমন নামায, রোযা, দান - খয়রাত ও তিলাওয়াতে কোরআন ইত্যাদি দ্বারা আদায় করা যায়।

বলুন! মহান আল্লাহর হাবীব যে দিন এ ধরাধামে জন্ম নিলেন উহা হে আর উত্তম নিয়ামত এ জগতে আর কি আছে? এরই উপর ভিত্তি করে সকলের উচিৎ হুযুরের জন্ম দিনে ঈদ উদযাপন করা। তাহলেই হযরত মূসা (আঃ) এর আশুরার ঘটনার সাথে এর সামঞ্জস্যতা রক্ষা হবে। যারা বলে থাকে, হযরত রাসূল মাকবুল (সাঃ) প্রতি বৎসর মাহে রবিউল আউয়ালে নতুন করে জন্ম লাভ করে কি? কেন এ জন্ম বার্ষিকী উদযাপন করা হবে? তদুত্তরে বলবো, তাহলে হযরত মূসা নবী বনী ইসরাঈল সহকারে প্রতি বৎসর মুহররম মাসে আশুরার দিন নীলনদ পার হন কি? সুতরাং উহা উদযাপন করা যে রূপ সুন্নাত তদ্রূপ ঈদে মীলাদুন্নবী উদযাপন করা প্রত্যেক মুসলমানের জন্য সুন্নাত। অতএব যারা মীলাদ অনুষ্ঠান না করে এ মাহে রবিউল আউয়ালে সিরাতুন্নবীর অনুষ্ঠান করতেছে তারা ভুল করতেছে। বিরাট ছওয়াব হতে নিজেরাও বঞ্চিত হচ্ছে অন্যকেও বঞ্চিত করতেছে। হে আল্লাহ তাদেরকে সঠিক বুঝ দান করুন এবং মীলাদুন্নবী উদযাপন করার তৌফিক দিন।

ঈদে মিলাদুন্নবী উদ্যাপনের ফজীলত :

ছাহাবায়ে কেরাম ও তাবেয়ীনে এজাম এবং আওলিয়ায়ে কেরামের বাণী সমূহঃ অনুবাদঃ হুযুর আকরাম এর সহোদর চাচা আবু লাহাবকে তার দাসী ছোয়াইলা যখন হুযুর আকরাম (সাঃ) এর জন্মের সুসংবাদ জানালেন তৎক্ষণাৎ সে খুশীতে আত্মহারা হয়ে তাকে আযাদ করে দিলেন। কথিত আছে, উক্ত আবু লাহাবকে তার মৃত্যুর পর তার পরিবারবর্গের কোন এক ব্যক্তি স্বপ্ন যোগে দেখে জিজ্ঞেস করল কেমন আছ? সে উত্তরে বলল দোযখে পড়ে আছি, তবে সপ্তাহের সোমবার রাতে আমার শাস্তি হালকা করে দেয়া হয়। আঙ্গুলের মাথা দ্বারা সে ইশারা করে বলল, আমি এ দু'টি আঙ্গুলের মাঝে পানি চুষতে থাকি। উহার একমাত্র কারণ হলো, ছোয়াইবা দাসী আমাকে নবী পাকের জন্মের সুসংবাদ দেয়ায় এবং তাঁকে দুগ্ধ পান করানোর কারণে আযাদ করে দিয়েছিলাম। ইবনুল জাফরী বলেছেন, যে আবু লাহাব জাহান্নামী বলে কোরআন পাকে ঘোষিত, তাকে যখন মীলাদুন্নবীর খুশীতে দান করার কারণে দোযখ হতে প্রতি সোমবার নিস্তার দেয়া হয়, তাহলে যে মুসলমান মীলাদুন্নবীর ঈদ উদযাপন করেন ও তাঁর মহব্বতে মাল দৌলত অর্থাৎ জনগণকে দান খয়রাত বা তাবারক প্রদান করেন তার প্রতি মহান আল্লাহর কি পরিমাণ অনুগ্রহ ও দয়া অবতীর্ণ হতে পারে, আপনারা উহা চিন্তা করুন। (হাবীউল ফাতাওয়া -১ / ২৬২ পৃঃ)। হযরত হাসান বছরী (রঃ) বলেছেন - অনুবাদঃ যদি মহান আল্লাহ আমাকে অহুদ পাহাড় পরিমাণ স্বর্ণের মালিক করতেন আমি উহা মীলাদুন্নবী উদযাপনে দান করে দিতাম।

হযরত জুনায়েদ বাগদাদী (রহঃ) এর বাণী - অনুবাদঃ যে ব্যক্তি মীলাদ অনুষ্ঠানে হাজির হল ও উহার প্রতি সে অত্যাধিক সম্মান প্রদর্শন করল সে অবশ্যই ঈমানের দ্বারা সাফল্য ম-িত হল।

তিনি আরো বর্ণনা করেছেন- অনুবাদঃ যে ব্যক্তি মীলাদুন্নবী উপলক্ষে তাবারকের ব্যবস্থা করে, বন্ধু বান্ধবগণকে একত্রিত করে, আলোকসজ্জা করে নতুন কাপড় পরিধান করে এবং খুশবো ও আতর গোলাপ ছিটায় মহান আল্লাহ ঐ ব্যক্তিকে রোজ কিয়ামতে সর্ব উচ্চ বেহেশতে নবীদের প্রথম দলে স্থান দেবেন।

ঈমাম ফখরুদ্দীন রাজী (রহঃ) বলেছেন - অনুবাদঃ যে ব্যক্তি মীলাদ শরীফ পাঠ করে নিমক বা আটা অথবা অন্য যে কোন খাদ্যের উপর ফুক দিবে ঐ খাদ্য ভক্ষণকারীর পেটে স্থির হবেনা যতক্ষণ না আল্লাহ পাক তাকে ক্ষমা করে দেন।

ঈমাম ফখরুদ্দীন রাজী (রহঃ) আরো বলেছেন - অনুবাদঃ ঈমাম ফখরুদ্দীন রাজী (রহঃ) বলেছেন, যদি মীলাদুন্নবী (সাঃ) করে পানিতে ফুঁক দেয়া হয় অতঃপর যে ব্যক্তি ঐ পানি থেকে পান করবে তার অন্তরে এক হাজার নূর ও রহমত প্রবেশ করবে এর এক হাজার হিংসা বিদ্বেষ বের হয়ে যাবে। আর ঐ অন্তর মরবেনা ঐ দিন যে দিন বহু লোকের অন্তর মরে যাবে। যে ব্যক্তি মীলাদ শরীফ পাঠ করে কতক রৌপ্য বা স্বর্ণ মুদ্রার উপর ফুঁক দিবে ঐ সব মুদ্রা তার অন্যান্য যে সব মুদ্রার সাথে মিলবে হযরত নবী পাক (সাঃ) এর নামের বরকতে ঐ সব মুদ্রায় বরকত হবে। আর ঐ ব্যক্তি কোন সময় অভাবী হবে না এবং তার হাত শুন্য হবে না ঐ নামের বরকতে।

হযরত সিররী সাকাতী (রহঃ) বলেছেন - অনুবাদঃ যে ব্যক্তি কোন মীলাদ মাহফিলে যোগ দান করার ইচ্ছা করল, সে যেন বেহেশতের বাগানে যাওয়ার ইচ্ছা করলো। কেননা, লোকটি হুযুরের মহব্বতের কারণেই ঐ মাহফিলে যোগদান করতে যাচ্ছে। হাদীস পাকে এসেছে- যে আমাকে ভালবাসবে সে আমার সহিত বেহেশতে থাকবে।

ঈমাম জালালুদ্দীন সুয়ূতী (রহঃ)”আল অসায়িলু ফি শারহিশ শামায়িল” গ্রন্থে বলেছেন - অনুবাদঃ যে কোন গৃহে বা মসজিদে অথবা মহল্লাতে মীলাদ পাঠ করে আল্লাহ পাকের ফেরেশতা ঐ স্থানকে বেষ্টন করতঃ ঐ স্থানে ফেরেশতা অবতীর্ণ হয়ে তাদের জন্য ইসতেগফার করতে থাকে। মহান আল্লাহর রহমত ও রেজামন্দী ব্যাপক ভাবে তাদের উপর নাযিল হতে থাকে। আর যে সমস্ত ফেরেশতা নূর নিয়ে মজলিসে প্রদক্ষিণ করে অর্থাৎ জিব্রাঈল, মীকাঈল, ইস্রাফীল, আজরাঈল (আঃ) তাঁরা ঐ মজলিসের আহ্বায়কদের জন্য দোয়া করতে থাকেন।

উক্ত গ্রন্থে আরো বর্ণিত আছে - অনুবাদঃ যে কোন মুসলমান নিজ গৃহে মীলাদুন্নবী পাঠ করবে ঐ ঘর হতে মহান আল্লাহ অনটন, বালা - মুসীবত, অগ্নি জ্বলন, পানিতে নিমগ্ন, যাবতীয় মুছীবত ও হিংসা, হাসাদ, কু - দৃষ্টি, চোর - ডাকাত হতে মুক্ত রাখবেন। যখন সে মৃত্যুবরণ করবে মুনকার - নাকীর ফেরেশতার প্রশ্নোত্তর তার জন্য সহজ করে দেয়া হবে এবং সে পরম সুখের বেহেশত বাসী হবে। নেয়’মাতুল কুবরা কিতাবের ১১ পৃষ্ঠা দ্রষ্টব্য।

মীলাদুন্নবীর মাহফিলে তাবারকের ব্যবস্থা করা অতিশয় ছওয়াবের কাজ ও নবী প্রেমের পরিচয় :

প্রকাশ থাকে যে, আল্লামা ইবনে হাজার হাইছামী, ইমাম আবু সামা, আল্লামা সাখাবী ও আল্লামা ইবনুল জওয়ী যেসব মন্তব্য করেছেন উহা সকলের অবগতির জন্য মূল আরবী এবারতের অনুবাদ নিম্নে পেশ করা গেল। সীরাতে হালাবীয়া ১ / খন্ড ৮৪ পৃষ্ঠায় লিখিত আছে - অনুবাদঃ ইবনে হাজার হাইছামী বলেছেন, বিদয়াতে হাসানার প্রতি আমল করা সর্বসম্মতিক্রমে মুস্তাহাব সাব্যস্ত হয়েছে। সেমতে দলবদ্ধ ভাবে মীলাদ অনুষ্ঠান আহুত করা মুস্তাহাব।

ইমাম নববীর ওস্তাদ শায়খ আবু শামা বলেছেন, প্রতি বছর বারই রবিউল আউয়াল নুরনবীর জন্ম দিবসে এতদঞ্চলে সদকা খায়রাত সহকারে জাঁক - জমক পূর্ণ যে উৎসাহদায়ক মাহফিল অনুষ্ঠিত হতে চলছে উহা বিদয়াতে হাসানা বা উত্তম বিদয়াত।

উক্ত মাহফিলে ফকীর - মিসকীনকে দান - খয়রাত দেয়া হয়, যার ফলে মাহফিল আয়োজনকারীর মনে নূরনবীর মহব্বত ও তা'লীম বিরাজ করছে।

ইবনুল জওযী বলেছেন, মীলাদ মাহফিলের বিশেষত্বের মধ্যে একটি বিশেষত্ব হলো যে, একবার মীলাদ মাহফিল যে স্থানে অনুষ্ঠিত হয় উহা এক বৎসরকাল যাবতীয় বালা - মুছীবত হতে নিরাপদ থাকে এবং মনোবাঞ্ছনা পূর্ণ হয়।

পরিশেষে বলতে চাই, হযরত মুহাম্মাদ (সাঃ) কে আমরা সকলেই মনে প্রাণে ভালোবাসি। নবিজী (সাঃ) এর জন্মদিন উপলক্ষে ঈদে মিলাদুন্নাবী (সাঃ) পালন করা ভালোবাসারই বহি:প্রকাশ।

রবিউল আউয়াল মাসের তুলনায় এত বেশি নবী (সাঃ) এর জীবনী পাঠ, জীবনী আলোচনা, সুন্নাহ ভিত্তিক আলোচনা, নবী (সাঃ) এর আদর্শ প্রচার, আর কোন মাসে হয়না। বিভিন্ন ব্যাক্তিদের জন্ম মৃত্যুতে তাদের স্মরণ করার উদ্দেশ্য হলো তাদের আদর্শ প্রচার করা। তাই আমরাও সবাই সবার অবস্হান থেকে নবিজী (সাঃ) এর জীবনী /আদর্শ প্রচার করে বিভিন্ন সভা, সেমিনার, র্যালী করি।

অনেকে আবার ঈদে মিলাদুন্নাব(সাঃ) এর বিরোধীতা করতে গিয়ে নবিজীর জন্মের বিষয় নেগেটিব ভাবে আলোচনা করে থাকে। তাদেরকে সাবধান করছি, নবিজী (সাঃ) মুমিনের ঈমান। ঈমানে আঘাত দিয়ে কথা বলা যাবে না।

প্রতিটি মসজিদ, মাদ্রাসা, খানকা,কলেজ হাসপাতাল,স্কুল কলেজ, বিশ্ব বিদ্যালয়। সংসদ, মন্ত্রী পরিষদ, সরকারী বে-সরকারী সহ সকল প্রতিষ্ঠানে মিলাদুন্নাবী (সাঃ) পালন করে নবীজির আদর্শ সর্বত্র ছড়িয়ে দিন।

আল্লাহ তা'য়ালা আমাদেরকে হজ্জে বাইতুল্লাহ, জিয়ারতে মাদীনা,প্রিয় নবিজীর জিয়ারত ও হাশর ময়দানে নবিজীর সাথে হাশর করিয়ে নবিজীর শাফায়াতে জান্নাত নসীব করুক।আমিন।

লেখক : ইমাম ও খতিব, বিষ্ণুপুর মদিনা বাজার বাইতুল আমিন জামে মসজিদ, চাঁদপুর সদর, চাঁদপুর।

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়