চাঁদপুর, বৃহস্পতিবার, ১৯ মে ২০২২, ৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ১৭ শাওয়াল ১৪৪৩  |   ৩৩ °সে
আজকের পত্রিকা জাতীয়আন্তর্জাতিকরাজনীতিখেলাধুলাবিনোদনঅর্থনীতি শিক্ষা স্বাস্থ্য সারাদেশ ফিচার সম্পাদকীয়
ব্রেকিং নিউজ
  •   হাজীগঞ্জের শিশু আরাফ হত্যায় তিন আসামীর মৃত্যুদণ্ড
  •   কল্যাণপুর ইউপির জেলে চাল আত্মসাৎ, দুই গুদাম সিলগালা
  •   মা আর স্ত্রীকে বুঝিয়ে দেয়া হলো দুই ভাইয়ের লাশ
  •   বাকিলা উচ্চ বিদ্যালয়ে ভিম ধ্বসে ৩ ছাত্রী গুরুতর আহত
  •   আশিকাটিতে খাটের নিচে গৃহবধূর লাশ ॥ স্বামী পলাতক

প্রকাশ : ১৮ জানুয়ারি ২০২২, ০০:০০

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার সমীপে-

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার সমীপে-
অনলাইন ডেস্ক

হাজীগঞ্জ উপজেলার রাজারগাঁও ইউনিয়নে ১৪টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৮৫ শিক্ষকের মধ্যে কর্মরত রয়েছেন ৫১ জন। শিক্ষক স্বল্পতায় এ ইউনিয়নে প্রাথমিক শিক্ষা কার্যক্রম মারাত্মক ব্যাহত হচ্ছে বলে চাঁদপুর কণ্ঠের নিজস্ব প্রতিনিধি আলমগীর কবির পরিবেশিত এক সংবাদে উল্লেখ করা হয়েছে। সোমবার প্রকাশিত এ সংবাদটিতে লিখা হয়েছে, সরকার প্রাথমিক শিক্ষাকে বাধ্যতামূলক করলেও দীর্ঘদিন যাবৎ শিক্ষক স্বল্পতায় রাজারগাঁও ইউনিয়নে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে চলছে প্রাথমিক শিক্ষা কার্যক্রম। ৮৫টি শিক্ষক পদের মধ্যে ২৩টি শূন্য আছে। বাকি ৬২টি পদে শিক্ষক থাকলেও প্রকৃতপক্ষে ৫১ জন কর্মরত আছেন। অন্য ১১ জন কাগজে কলমে থাকলেও বাস্তবে নেই। এদের ৩জন ডেপুটেশনে এবং ৮জন পিটিআইতে ট্রেনিংয়ে আছেন। এর ফলে ১৪টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গড়ে প্রতিটিতে চারজনেরও কম শিক্ষক রয়েছেন, যা প্রচলিত নিয়ম পরিপন্থী। এ নিয়ম রক্ষায় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কারো আগ্রহ বা উদ্বেগ আছে বলে মনে হচ্ছে না।

আলমগীর কবিরের সংবাদ থেকে জানা গেছে, ২নং দক্ষিণ-পশ্চিম রাজারগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থী সংখ্যা ১৩১জন, শিক্ষক পদ সংখ্যা ৫জন। কিন্তু নিতান্তই ব্যক্তিগত স্বার্থে খাদিজা আক্তার নামে এক শিক্ষক ডেপুটেশনে আছেন বাকিলা ইউনিয়নের গোগরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। ৫নং পূর্ব রাজারগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থী সংখ্যা ২৩২ জন। ৯টি শিক্ষক পদে কর্মরত আছেন ৬ জন। তন্মধ্যে ১ জন মাতৃত্বকালীন ছুটিতে থাকায় বাস্তবে কাজ করছেন ৫জন। ৬নং রাজারগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থী সংখ্যা ২৬১ জন। ৯টি শিক্ষক পদের মধ্যে ৬টিতে নিয়োগ থাকলেও হালিমা আক্তার নামে এক শিক্ষক ব্যক্তিগত সুবিধার্থে কালোচোঁ ইউনিয়নের চিলাচোঁ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ডেপুটেশনে আছেন। সেজন্যে রাজারগাঁও সপ্রাবিতে বাস্তবে কর্মরত আছেন ৫জন।

উপরোক্ত দুটি বিদ্যালয়ে ৫জন কর্মরত থাকায় দু শিফটে শ্রেণি কার্যক্রম পরিচালনা কষ্টকর হলেও করা সম্ভব হচ্ছে। কিন্তু ৭নং মেনাপুর আগরজান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অবস্থা খুবই করুণ। এখানে ৫টি শিক্ষক পদের বিপরীতে ৪জন কর্মরত থাকলেও দুজন পিটিআইতে ট্রেনিংয়ে আছেন। সেজন্যে ২জন শিক্ষক দিয়ে শ্রেণি কার্যক্রম পরিচালনা অসম্ভব পর্যায়ে গিয়ে পৌঁছেছে। মেনাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৮টি শিক্ষক পদের মধ্যে ৫জন কাগজে-কলমে থাকলেও বাস্তবে কর্মরত আছেন ৩ জন। কেননা বাকি ২জনের ১ জন পিটিআইতে ট্্েরনিংয়ে এবং আয়রিন আক্তার নামে ১জন ব্যক্তিগত সুবিধার্থে মহামায়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ডেপুটেশনে আছেন। ৯নং মুকুন্দসার সপ্রাবিতে ৭টি শিক্ষক পদের বিপরীতে ৪জনের নিয়োগ থাকলেও বাস্তবে কাজ করছেন ৩ জন। অন্য ১জন পিটিআইতে ট্রেনিংয়ে আছেন। ১০নং আহমেদাবাদ সমপ্রাবিতে ৫টি শিক্ষক পদের বিপরীতে ৪জনের নিয়োগ থাকলেও পাঠদানে আছেন ৩জন। কেননা অন্য একজন পিটিআইতে ট্রেনিং নিচ্ছেন। মেনাপুর পীর বাদশা মিয়া সপ্রাবিতে ৫টি পদের মধ্যে ৪টি পদে শিক্ষক থাকলেও ১জন ট্রেনিংয়ে থাকায় পাঠদান করছেন ৩জন।

আমাদের জানা মতে, প্রাক প্রাথমিকের ১জন শিক্ষকসহ প্রতিটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে যে কোনো মূল্যে কমপক্ষে ৫জন শিক্ষক থাকা বাঞ্ছনীয়। কিন্তু হাজীগঞ্জের রাজারগাঁও ইউনিয়নে কিছু বিদ্যালয়ে সেভাবে শিক্ষক নেই। এজন্যে অভিভাবকসহ সচেতন মহল উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস ও জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের উদাসীনতা ও গাফলতিকে দায়ী করেছেন। প্রভাবশালী কারো অনুরোধ, শিক্ষক সংগঠনের নেতৃবৃন্দের অবৈধ হস্তক্ষেপসহ অদৃশ্য কিছু কারণে যে কিছু শিক্ষক সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাকে ম্যানেজ করে ডেপুটেশনে নিজেদের সুবিধাজনক স্থানে কাজ করার সুযোগ নিচ্ছেন সেটা বলার অপেক্ষা রাখে না। যেখানে কোনো সপ্রাবিতে ৪জন শিক্ষক কর্মরত থাকাবস্থায় কারো বদলি নিষিদ্ধ, সেখানে পিটিআইতে ২জন শিক্ষককে ট্রেনিংয়ে পাঠিয়ে ২জনকে দিয়ে পাঠদানের চিন্তা সংশ্লিষ্ট জেলা/উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা কীভাবে করেন সেটা সচেতন কারোই বোধগম্য নয়। আমরা হাজীগঞ্জের রাজারগাঁও ইউনিয়নে ১৪টি সপ্রাবির শিক্ষক স্বল্পতা/শিক্ষক সঙ্কট নিরসনে বাস্তবমুখী চিন্তা করা এবং শিক্ষকের শূন্য পদে নিয়োগদানের আন্তরিক পদক্ষেপ গ্রহণের জন্যে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার সমীপে বিনীত অনুরোধ জানাচ্ছি।

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়