চাঁদপুর, রবিবার, ১৪ আগস্ট ২০২২, ৩০ শ্রাবণ ১৪২৯, ১৫ মহররম ১৪৪৪  |   ২৯ °সে
আজকের পত্রিকা জাতীয়আন্তর্জাতিকরাজনীতিখেলাধুলাবিনোদনঅর্থনীতি শিক্ষা স্বাস্থ্য সারাদেশ ফিচার সম্পাদকীয়
ব্রেকিং নিউজ
  •   পাঁচ দফা জানাজা শেষে হাজীগঞ্জ উপজেলা বিএনপি সভাপতির দাফন সম্পন্ন
  •   চোর-ডাকাত আতঙ্কে কচুয়াবাসী
  •   ২ লাখ টাকার বালু পরিবহনে কোটি টাকার কার্গো ডাকাতিয়ায় ডোবার উপক্রম!
  •   গরুর গুঁতোয় ২ মোটরসাইকেল আরোহী জখম
  •   চাঁদপুর মাছঘাটে কমে গেছে ইলিশের সরবরাহ

প্রকাশ : ০২ জুলাই ২০২২, ০০:০০

বড় বাজেট বাস্তবায়নে চাই বড় সহযোগিতা
অনলাইন ডেস্ক

গত ৩০ জুন হাজীগঞ্জ পৌরসভার ২০২২-২৩ অর্থ বছরের ১১৪ কোটি টাকার বাজেট ঘোষণা করা হয়েছে। নিঃসন্দেহে এটি হাজীগঞ্জ পৌরসভা সৃষ্টির পর সবচে’ বড় বাজেট। ইতোমধ্যে শাহরাস্তি পৌরসভার ৬২ কোটি টাকার বাজেট ঘোষণা করা হয়েছে। এছাড়া চাঁদপুর পৌরসভা, ফরিদগঞ্জ পৌরসভা, কচুয়া পৌরসভা, মতলব পৌরসভা ও ছেঙ্গারচর পৌরসভার বাজেট এখনও ঘোষণা করা হয়নি। সে হিসেবে আপাতত বলা যায়, হাজীগঞ্জ পৌরসভার ঘোষিত বাজেট অনেক বড় বাজেট, যেটি পর পর দুবার নির্বাচিত এ পৌরসভার মেয়র আ.স.ম. মাহবুব-উল-আলম লিপনের সাহসিকতার পরিচায়ক।

হাজীগঞ্জ পৌরসভার ২০২২-২৩ অর্থ বছরের প্রস্তাবিত বাজেটে ১১৪ কোটি ১৪ লাখ ২০ হাজার ২৫০ টাকা আয়, ১০৯ কোটি ৫১ লাখ ৭০ হাজার টাকা ব্যয় ও ৪ কোটি ৬২ লাখ ৫০ হাজার ২৫০ টাকা উদ্বৃত্ত ধরা হয়েছে। এর মধ্যে রাজস্ব বাজেটে ২৭ কোটি ৯ লাখ ১২৫০ টাকা আয়, ২৬ কোটি ২৭ লাখ ৫ হাজার টাকা ব্যয় ও ৮১ লাখ ৯৬ হাজার ২৫০ টাকা উদ্বৃত্ত ধরা হয়েছে। উন্নয়ন বাজেটে আয় ধরা হয়েছে ৮৭ কোটি ৫ লাখ ১৯ হাজার টাকা, ব্যয় ধরা হয়েছে ৮৩ কোটি ২৪ লাখ ৬৫ হাজার টাকা এবং উদ্বৃত্ত ধরা হয়েছে ৩ কোটি ৮০ লাখ ৫৪ হাজার টাকা।

বাজেট বক্তৃতায় হাজীগঞ্জ পৌরসভার মেয়র বলেছেন, প্রস্তাবিত ১১৪ কোটি টাকার বাজেট আমাদের জন্যে অনেক বড় পাওনা। এটা বাস্তবায়ন করা আমাদের জন্যে অনেকটাই সহজ হবে, যদি আমরা সবাই ঐক্যবদ্ধ হয়ে সহযোগিতা করি। এ বাজেট বাস্তবায়নে তিনি সকল পৌরবাসীর সহযোগিতা প্রত্যাশা করেন। তিনি বলেন, ঘোষিত বাজেট শতভাগ বাস্তবায়ন হলে হাজীগঞ্জবাসী উপকৃত হবে। গেলো বছরগুলোতে আমরা প্রস্তাবিত বাজেটের ৮০ শতাংশের ওপরে বাস্তবায়নে সক্ষম হয়েছি। গত অর্থ বছরের চেয়ে এবারের বাজেট ৫০ কোটি টাকা বেশি।

আমরা মনে করি, গত বছরের চেয়ে অর্ধশত কোটি টাকা বেশি ধরে ঘোষিত শতাধিক কোটি টাকার বাজেট বাস্তবায়ন হাজীগঞ্জ পৌরসভার জন্যে অনেক বড় চ্যালেঞ্জ। এ চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় প্রধানত সহযোগিতা প্রয়োজন স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের। কেননা এ মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতা ও অনুমোদন ছাড়া বিভিন্ন উৎস থেকে উন্নয়ন বাজেটের প্রায় ৮৭ কোটি টাকা প্রাপ্তি নিশ্চিত হবে না। আমরা বিশ্বাস করি, বৃহত্তর কুমিল্লার কৃতী সন্তান হিসেবে স্থানীয় সরকার মন্ত্রী তাজুল ইসলাম অবশ্যই হাজীগঞ্জ পৌরসভার প্রতি বিশেষ দৃষ্টি দেবেন। সর্বোপরি হাজীগঞ্জ-শাহরাস্তি নির্বাচনী এলাকায় অভাবনীয় উন্নয়নের রূপকার মেজর (অবঃ) রফিকুল ইসলাম বীর উত্তম এমপি অবশ্যই এ পৌরসভাটির দিকে বিশেষ নজর দিয়েছেন ও আরো বেশি দেবেন-এটা প্রত্যাশা করি। কিন্তু এ দুজনের সহযোগিতাতেই কি সব হবে? মোটেও নয়। করদাতা প্রতিটি পৌরবাসীর সর্বাত্মক সহযোগিতা ও আন্তরিকতাও অনিবার্য। আমরা হাজীগঞ্জ পৌরসভার এবারকার বড় বাজেটের শতভাগ বাস্তবায়ন প্রত্যাশা করছি।

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়