চাঁদপুর, রবিবার, ১৪ আগস্ট ২০২২, ৩০ শ্রাবণ ১৪২৯, ১৫ মহররম ১৪৪৪  |   ২৯ °সে
আজকের পত্রিকা জাতীয়আন্তর্জাতিকরাজনীতিখেলাধুলাবিনোদনঅর্থনীতি শিক্ষা স্বাস্থ্য সারাদেশ ফিচার সম্পাদকীয়
ব্রেকিং নিউজ
  •   পাঁচ দফা জানাজা শেষে হাজীগঞ্জ উপজেলা বিএনপি সভাপতির দাফন সম্পন্ন
  •   চোর-ডাকাত আতঙ্কে কচুয়াবাসী
  •   ২ লাখ টাকার বালু পরিবহনে কোটি টাকার কার্গো ডাকাতিয়ায় ডোবার উপক্রম!
  •   গরুর গুঁতোয় ২ মোটরসাইকেল আরোহী জখম
  •   চাঁদপুর মাছঘাটে কমে গেছে ইলিশের সরবরাহ

প্রকাশ : ০৪ আগস্ট ২০২২, ০০:০০

সরকারি গাড়ির অপব্যবহার এবং তেল অপচয়
অনলাইন ডেস্ক

আরটিভিতে অতি সম্প্রতি এমন একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে, যাতে সরকারি গাড়ির অপব্যবহার এবং তেল অপচয়ের বিষয়টি প্রামাণ্যভাবে তুলে ধরা হয়েছে। এ প্রতিবেদনে সরকারি কর্মকর্তা ও তাদের স্ত্রী নিতান্তই ব্যক্তিগত প্রয়োজনে সরকারি গাড়ি কীভাবে ব্যবহার করে সেটি দেখানো হয়েছে। একজন সরকারি কর্মকর্তার স্ত্রী বা তার অধস্তন কর্মচারী দৈনন্দিন নিত্য প্রয়োজনীয় কেনাকাটায় গাড়ি ব্যবহার করে এবং সন্তান শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যাতায়াতে গাড়ি ব্যবহার করে-এটি অতি পুরানো চিত্র। কিন্তু ব্যক্তিগত প্রয়োজনে সরকারি গাড়ি ব্যবহারকালে ড্রাইভাররা বাজার/ মার্কেট/ শপিং মলের এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সামনে গাড়ি দাঁড় করিয়ে রাখা তথা পার্কিংয়ের সময় দেদার এসি ব্যবহার করে। এতে তেল বা জ্বালানির অপচয় হয় ব্যাপক। যেখানে সরকার প্রধান হিসেবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চলমান সঙ্কটকালে জ্বালানি সাশ্রয়ের প্রশ্নে দেশবাসীকে নানা পরামর্শ দিয়েছেন এবং বিদ্যুতের অনিবার্য লোডশেডিং সহ্য করার জন্যে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী অনুরোধ জানিয়েছেন, সেখানে সরকারি কর্মকর্তাদের গাড়ির ব্যক্তিগত লাগামহীন ব্যবহার আর ড্রাইভারদের তেল অপচয় কতোটা সমীচীন সেটা ভেবে দেখার বিষয়।

আরটিভির প্রতিবেদনে রাজধানীতে সরকারি গাড়ির অপব্যবহারের চিত্র ফুটে উঠেছে। বিভাগীয়, জেলা ও উপজেলা শহরের চিত্র খুব একটা ভিন্ন নয়।

চাঁদপুর পৌরসভার মেয়র জিল্লুর রহমান জুয়েল তাঁর পৌরসভার গাড়িসমূহ সরকারি কর্মকর্তাদের গাড়ির ন্যায় ব্যক্তিগতভাবে ব্যবহারের সুযোগ না থাকলেও তেল অপচয়ের সুযাগ রয়েছে বলে তাঁর পর্যবেক্ষণে নির্ণয় করেছেন। সেমতে তিনি প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিয়েছেন। আমরা মনে করি, রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের প্রভাবে সৃষ্ট পরিস্থিতি মোকাবেলায় সরকার জ্বালানি সঙ্কটহেতু বিদ্যুৎ উৎপাদন স্বাভাবিক রাখতে যেখানে হোঁচট খেয়েছে, সেখানে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সরকারি গাড়ি ব্যবহারে জ্বালানি অপচয় রোধসহ যাবতীয় অপ্রয়োজনীয় ব্যয়ের বিষয়ে আন্তরিকতার সাথে সচেতন হওয়া অতীব জরুরি। সরকারি পদণ্ডপদবী ব্যবহার করে স্বীয় অবৈধ স্বার্থ হাসিল এবং পরিবারের সদস্যদের অবৈধ সুবিধাভোগ-পরিহারের ব্যাপারে প্রতিটি সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীর বিবেককে জাগ্রত করার কোনো বিকল্প নেই।

আমরা বিশ্বাস করি, আমাদের সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীগণের অধিকাংশই অনেক মেধাবী। তাদেরকে কর্মক্ষেত্রে সেবার সর্বোচ্চটুকু বিলিয়ে দেয়ার জন্যে সরকারের পক্ষ থেকে যাবতীয় প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়। এ প্রশিক্ষণের আলোকে সততা ও শুদ্ধাচার অবলম্বন করলে কেবল সরকারি গাড়ির অপব্যবহার ও তেলের অপচয় বন্ধ হবে না, অন্যান্য অনিয়ম-দুর্নীতিও ক্রমশ হ্রাস পাবে। এজন্যে সবার ঊর্ধ্বে স্থান দিতে হবে দেশপ্রেমকে, দেশের স্বার্থকে।

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়