চাঁদপুর, শনিবার, ৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২১ মাঘ ১৪২৯, ১২ রজব ১৪৪৪  |   ২৪ °সে
আজকের পত্রিকা জাতীয়আন্তর্জাতিকরাজনীতিখেলাধুলাবিনোদনঅর্থনীতি শিক্ষা স্বাস্থ্য সারাদেশ ফিচার সম্পাদকীয়
ব্রেকিং নিউজ
  •   কচুয়ায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নব-নিয়োগপ্রাপ্ত সহকারী শিক্ষকদের সাথে এমপির মতবিনিময়
  •   খলিশাডুলীতে স্কুলছাত্রীর আত্মহত্যা
  •   জানুয়ারিতে সড়ক দুর্ঘটনায় ৩২২ জনের মৃত্যু
  •   আজ রোটারিয়ান মরহুম দেওয়ান আবুল খায়েরের ২৫তম মৃত্যুবার্ষিকী
  •   ফরিদগঞ্জে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে দেশীয় অস্ত্র ও মাদকসহ আটক তিন

প্রকাশ : ২৭ নভেম্বর ২০২২, ০০:০০

খোদ চাঁদপুর শহরে ট্রেনে পাথর নিক্ষেপের ঘটনা!

খোদ চাঁদপুর শহরে ট্রেনে পাথর নিক্ষেপের ঘটনা!
অনলাইন ডেস্ক

আঁধার রাতে নিরিবিলি গ্রামীণ এলাকা অতিক্রমকালে ট্রেনে পাথর নিক্ষেপের ঘটনা ব্রিটিশ আমল থেকেই ঘটে আসছিলো। সেজন্যে রেল কর্তৃপক্ষ প্রধান প্রধান রেলপথগুলোর দুপাশে কাঁটা তারের বেড়া দিয়েছিলো। ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক শাসন থকে স্বাধীনতা পাওয়ার পর পাকিস্তান আমলে রেলপথ বন্দিদশা থেকে মুক্তি পায় অর্থাৎ দুপাশের কাঁটা তারের বেড়া ক্রমশ বিলুপ্ত হয়ে যায়। এতে উন্মুক্ত রেলপথ আগের মতোই অনিরাপদ হতে থাকে। গরু-ছাগল-মানুষের উপদ্রব বাড়তে থাকে রেলপথে। একই সাথে এসব প্রাণীর ট্রেনে কাটা পড়ে মৃত্যুর ঘটনাও বাড়তে থাকে। মানুষের মধ্যে কেউ কেউ নিরুপদ্রব আত্মহত্যার জন্যে বেছে নেয় রেলপথকে। নিরবে নিভৃতে রেলপথের পাশে দাঁড়িয়ে থাকে ট্রেনের ইঞ্জিনের সামনে ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যা করতে গিয়ে সাধারণত কেউ ব্যর্থ হয় না। অনুরূপ অব্যর্থ প্রয়াস ট্রেনে পাথর নিক্ষেপ করার ক্ষেত্রেও চালায় কিছু মানুষরূপী পশু। এতে জানালার কাচ ভেঙ্গে কিংবা সরাসরি নিক্ষিপ্ত পাথরের আঘাতে ট্রেন যাত্রীরা কিংবা রেলকর্মীরা আহত-নিহত হয়। কিন্তু বন্ধ করা যাচ্ছে না ট্রেনে পাথর নিক্ষেপের ঘটনা।

পরিস্থিতি এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে, এখন নিরিবিলি গ্রামীণ এলাকা নয় কিংবা রাতে নয়, একেবারে দিন-দুপুরে খোদ শহরে ট্রেনে পাথর নিক্ষেপের ঘটনা ঘটা শুরু হয়েছে। আর দুর্ভাগ্যজনকভাবে সেটি ঘটেছে চাঁদপুর শহরে।

চাঁদপুর কণ্ঠে প্রকাশিত সংবাদ থেকে জানা যায়, গত ২৩ নভেম্বর (বুধবার) চাঁদপুর শহরের বড় স্টেশন রেলওয়ে এলাকায় বসবাসরত জনৈক টিক্কার ছেলে মোঃ রাসেল (২৫) সহ একদল মাদক সেবনকারী ও বিক্রেতা মাদক সেবন করে উন্মাদ হয়ে যায়। তারা মেজাজের ভারসাম্য রক্ষা করতে না পেরে দিন-দুপুরে চাঁদপুর ও চট্টগ্রামের মধ্যে চলাচলকারী মেইল ট্রেন সাগরিকা এক্সপ্রেসে পাথর নিক্ষেপ করতে থাকে। এতে ট্রেনের জানালার কাচ ব্যাপক ভাংচুর হয়, তবে অল্পের জন্যে যাত্রীরা হতাহত হওয়া থেকে রক্ষা পায়। এ ব্যাপারে গভর্নমেন্ট রেলওয়ে পুলিশ (জিআরপি)-এর পক্ষ থেকে ১০-১২ জনকে আসামী করে পরদিন চাঁদপুর বড় স্টেশনস্থ থানায় জননিরাপত্তা আইনে একটি মামলা দায়ের করা হয়। সেমতে পুলিশ জাকির হোসেন গাজী (২২) নামে একজনকে আটক করে আদালতে প্রেরণ করলে বিচারক তার জামিন নামঞ্জুর করে জেল হাজতে পাঠায়। এজন্যে অবশ্যই পুলিশ সাধুবাদ পাওয়ার যোগ্য। আবার পুলিশের ব্যর্থতায় ক্ষোভও রয়েছে।

জানা যায়, চাঁদপুর শহরের বড় স্টেশন রেলওয়ে শ্রমিক কলোনী ও যমুনা রোড এলাকাসহ সন্নিহিত রেল এলাকায় দীর্ঘদিন ধরে গাঁজা বিক্রি ও সেবন চলছে। এর সাথে সংশ্লিষ্টরা শুধু মাদক বিক্রিই করে না, এরা চলন্ত ট্রেনের যাত্রীদের হাত থেকে মোবাইল ফোন ছিনতাই করে এবং যাত্রীদের ব্যাগ নিয়ে ট্রেন থেকে লাফিয়ে পড়ে পালিয়ে যায়। চাঁদপুর ও চট্টগ্রামের মধ্যে চলাচলকারী মেঘনা আন্তঃনগর ট্রেনে ভোরে ও রাতে এতোদিন এসব দুর্বৃত্তের এমন হানা চললেও এখন তারা দিনের বেলায়ও একই রূটের সাগরিকা এক্সপ্রেস ট্রেনের প্রতিও কুনজর দিয়েছে। তারা ট্রেনে পাথর নিক্ষেপের মতো ঘটনা ঘটিয়ে রীতিমত আতঙ্কের জন্ম দিয়েছে। কেননা অদ্যাবধি দিনে ও রাতে চাঁদপুরে ট্রেনে পাথর নিক্ষেপের মতো ঘটনা ছিলো না বললেই চলে। এমন ঘটনায় পুলিশ একজনকে শুধু নয়, সংশ্লিষ্ট সবাইকে গ্রেফতার করে ট্রেনে পাথর নিক্ষেপের পুনরাবৃত্তি রোধে কার্যকর ব্যবস্থাগ্রহণে কঠোর ও আন্তরিক হবে বলে আমরা বিশ্বাস করি।

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়