চাঁদপুর, শনিবার, ৩ ডিসেম্বর ২০২২, ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ৮ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪  |   ৩০ °সে
আজকের পত্রিকা জাতীয়আন্তর্জাতিকরাজনীতিখেলাধুলাবিনোদনঅর্থনীতি শিক্ষা স্বাস্থ্য সারাদেশ ফিচার সম্পাদকীয়
ব্রেকিং নিউজ
  •   ফরিদগঞ্জে কিন্ডারগার্টেন এসোসিয়েশন মেধাবৃত্তি পরীক্ষা
  •   হাইমচরে রাতভর পাহারা দিয়েও রক্ষা হয়নি চরের মাটি
  •   বড়স্টেশন মেঘনায়  ট্রলারের ধাক্কায় নিঁখোজ জেলের লাশ পাঁচদিন পর উদ্ধার
  •   মতলব উত্তরে মোটর সাইকেল দূর্ঘটনায় আহত তানভীরও চলে গেলো না ফেরার দেশে
  •   কাল হেলিকপ্টারে মতলব উত্তরে আসছেন ড. এনায়েতুল্লাহ আব্বাসী

প্রকাশ : ০৫ এপ্রিল ২০২২, ০০:০০

কাল চাঁদপুর স্টেডিয়ামে শুরু হচ্ছে জাতীয় স্কুল ক্রিকেট টুর্নামেন্ট

কাল চাঁদপুর স্টেডিয়ামে শুরু হচ্ছে জাতীয় স্কুল ক্রিকেট টুর্নামেন্ট
চৌধুরী ইয়াসিন ইকরাম ॥

কাল বুধবার থেকে চাঁদপুর স্টেডিয়ামে শুরু হচ্ছে প্রাইম ব্যাংক জাতীয় স্কুল ক্রিকেট টুর্নামেন্ট। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের ব্যবস্থাপনায় জেলা শহরের ৪টি স্কুল নিয়ে এ টুর্নামেন্ট অনুষ্ঠিত হবে। অংশ নেয়া দলগুলো হলো : পুরাণবাজার মধুসূদন উচ্চ বিদ্যালয়, আল-আমিন একাডেমী স্কুল এন্ড কলেজ, বাবুরহাট হাই স্কুল এন্ড কলেজ ও গণি মডেল উচ্চ বিদ্যালয়। উদ্বোধনী দিনের খেলায় অংশগ্রহণ করবে বাবুরহাট হাই স্কুল ও আল-আমিন একাডেমী।

বাংলাদেশ ক্রিকেটের ধাপ পরিবর্তন করার জন্যেই স্কুল ক্রিকেট টুর্নামেন্ট শুরু হয়েছিলো। আশির দশকে স্কুল ক্রিকেট ছিলো আলোচিত টুর্নামেন্ট। জাতীয় দলের বেশিরভাগ ক্রিকেটারই উঠে আসতো এ টুর্নামেন্ট থেকে। স্কুল ক্রিকেটের আদলে গড়ে উঠছে ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় টুর্নামেন্ট। ভালো মানের ক্রিকেটার ও ভালো স্কুলকে প্রাধ্যন্য দিতেই এ টুর্নামেন্টের আয়োজন করেছে আয়োজকরা। পাল্টে ফেলা হয়েছে এ টুর্নামেন্টের আগের লোগো। নতুন মোড়কে থাকবে অনেক কিছু। কিন্তু সময় যত গড়িয়েছে ততই এ টুর্নামেন্টের রং হারিয়েছে। যদিও বেড়েছে অংশগ্রহণকারী স্কুলের সংখ্যা। বাংলাদেশের ক্রিকেটে পাইপ লাইন হিসেবে পরিচিত এ টুর্নামেন্টে ফিরিয়ে আনা হচ্ছে সেই নির্মাণ স্কুলের মডেল। এক সময় জাতীয় দলের অনেক ক্রিকেটারই আসতো এ টুর্নামেন্ট থেকে। ২০২০ সালের মাঝপথে করোনার জন্য বন্ধ হয়ে গিয়েছিলো এ টুর্নামেন্ট।

এ টুর্নামেন্টে এবার সারাদেশ থেকে প্রায় ৭ হাজার খুদে ক্রিকেটার অংশ নিচ্ছে। অংশ নিয়েছে চাঁদপুর জেলার ৪টি স্কুলসহ সারাদেশের ৩৪৮টি স্কুল। এখান থেকে ক্রিকেটারগণ প্রথমে জেলা, পরবর্তীতে বিভাগীয় এবং এরপরে জাতীয় পর্যায়ে খেলার সুযোগ পাবে। এই টুর্নামেন্টের নিয়ম অনুযায়ী যে কোনো স্কুলের ৫ জন ক্রিকেটার অংশ নেয়া দলগুলোর হয়ে খেলতে পারবে।

এই টুর্নামেন্টে যে সমস্ত ক্রিকেটার ভালো করবে তাদেরকে পরবর্তীতে জাতীয় পর্যায়ে খেলার সুযোগ করে দিবেন আয়োজকরা।

চাঁদপুর স্টেডিয়ামে অংশ নেয়া (প্রাপ্ত তালিকা অনুযায়ী) খেলোয়াড়রা হলো :- গণি মডেল উচ্চ বিদ্যালয় : সালমান হাছান, আয়ান হোসেন, আরমান, নোমান, সিয়াম, আপন, সীমান্ত, ইয়াসিন, রবীন, মিনহাজ, অমর, নিলয়, সফিক, হামিদুর, সঞ্জিত ও শিহাব। কোচ পলাশ কুমার সোম।

আল-আমিন একাডেমী : ফারদিন, ইলিয়াছ, আলামিন, রাফিদ, আলী, ইনজামাম, সিমরান, মাহাজ, রিজভী, শ্রাবণ, রায়হান, অমিত হাসান, জহির ও তানভীর। কোচ জয়নাল আবেদীন।

বাবুরহাট হাই স্কুল : অনিমেষ, ফারদিন, তুষার, মুনতাছির, অনিক, আহাদ, ওমর ফারুক ও রাতুল। কোচ রাজন।

পুরাণবাজার মধুসূদন উচ্চ বিদ্যালয় : মুন্না, মারুফ, হোসেন গাজী, মুহিন, সাফি, রাজু, ফরহাদ, সজীব গাজী, শ্রাবণ দাস ও নাজমুল। কোচ ওয়াহিদুজ্জামান।

বিসিবির ক্রিকেট কোচ ও চাঁদপুর ক্রিকেটের কর্ণধার ও ক্লেমন ক্রিকেট একাডেমী চাঁদপুরের প্রতিষ্ঠাতা শামিম ফারুকী এ প্রতিবেদককে বলেন, এবারের স্কুল ক্রিকেটে অনেক কিছু পরিবর্তন করেছে। এখান থেকে ভালো মানের স্কুল ক্রিকেটারদের বাছাই করে পরবর্তীতে জাতীয় পর্যায়ে খেলার সুযোগ করে দেয়া হবে। টুর্নামেন্টগুলোতে যেই স্কুলের ক্রিকেটারগণ ভালো করবে তাদেরকে বিসিবি থেকে বৃত্তি প্রদান করা হবে। দেশের অনেক জাতীয় ক্রিকেটারই স্কুল ক্রিকেটে খেলার মাধ্যমে জাতীয় দলে খেলার সুযোগ পেয়েছে। চাঁদপুর জেলায় অংশ নেয়া ৪টি দলের মধ্যে অনেক ভালো ক্রিকেটার রয়েছে। এরা যদি এদের ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে পারে তাহলে তারাও বিভাগীয় পর্যায় থেকে জাতীয় পর্যায়ে খেলার সুযোগ পাবে।

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়