চাঁদপুর, সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ১৩ আষাঢ় ১৪২৯, ২৬ জিলকদ ১৪৪৩  |   ২৮ °সে
আজকের পত্রিকা জাতীয়আন্তর্জাতিকরাজনীতিখেলাধুলাবিনোদনঅর্থনীতি শিক্ষা স্বাস্থ্য সারাদেশ ফিচার সম্পাদকীয়
ব্রেকিং নিউজ
  •   রোটারী জেলায় চাঁদপুর রোটারী ক্লাবের অভাবনীয় সাফল্য অর্জন
  •   বৃহৎ র‌্যালি আল-আমিন একাডেমি ও চেয়ারম্যান সেলিম খানের
  •   পদ্মা সেতুর থিম সং-এর গীতিকার কবির বকুলকে শিক্ষামন্ত্রীর অভিনন্দন
  •   হাইমচরে পানিতে ডুবে শিশুর করুণ মৃত্যু
  •   শনিবার চাঁদপুরে পাঁচজনের করোনা শনাক্ত

প্রকাশ : ১২ এপ্রিল ২০২২, ০০:০০

ভিন্ন রূপে চাঁদপুর শহর

অভিযান অব্যাহত থাকবে : মেয়র জিল্লুর রহমান জুয়েল

ভিন্ন রূপে চাঁদপুর শহর
চাঁদপুর কণ্ঠ রিপোর্ট ॥

চাঁদপুর শহরকে এখন অনেকটা ভিন্ন রূপে দেখা যাচ্ছে। শহরে নেই কোনো বিলবোর্ড, ব্যানার, ফেস্টুন। একইসাথে রাস্তার পাশ জুড়ে থাকা ভ্রাম্যমাণ দোকান এবং অবৈধ স্থাপনাও নেই। পৌরসভার অভিযানে এসব উচ্ছেদ করা হয়েছে। তবে এর জন্য কিছু কিছু মানুষের বাঁকা কথা শুনতে হয়েছে মেয়রকে। তবে বৃহৎ জনগোষ্ঠীর বা সর্বসাধারণের উপকারের কাছে সেসব বাঁকা কথা একেবারেই তুচ্ছ। এখন শহরটাকে অনেকটা পরিচ্ছন্ন দেখা যাচ্ছে। ঘিঞ্জি পরিবেশ এখন আর দেখা যাচ্ছে না। এমন মন্তব্য শহরবাসীর। তারা বলছেন, কিছুদিন আগেও যে পুরো শহর বিলবোর্ড, ব্যানার আর ফেস্টুনে ছেয়ে গিয়েছিল, এখন আর সেসব নেই। তাতে শহরটাকে অনেকটা পরিচ্ছন্ন দেখা যাচ্ছে।

চাঁদপুর শহরের যত্রতত্র বিলবোর্ড, ব্যানার, ফেস্টুন এবং বৈধ-অবৈধ বিজ্ঞাপন বোর্ডে ছেয়ে গিয়েছিল। রাস্তার দুপাশে থাকতো ভ্রাম্যমাণ ভ্যানগাড়ির দোকানের সারি। কোথাও টং দোকানও ছিল রাস্তার অংশ জুড়ে। সরু রাস্তার অর্ধেকের বেশিই দখলে থাকতো এসব অবৈধ দোকানের। ফুটপাতে থাকতো দোকানের মালামাল। আবার কোনো দোকানের মালামাল ফুটপাত ছাড়িয়ে রাস্তায়ও রাখা হতো। এতে করে রাস্তায় গাড়ি ও পথচারীদের চলাচলে মারাত্মক সমস্যা হতো। সবমিলিয়ে চরম ঘিঞ্জি ও বিশৃঙ্খল পরিবেশ বিরাজ করছিলো শহরজুড়ে। শহরবাসীকে এ অবস্থা থেকে মুক্তি দিতে চাঁদপুর পৌরসভার মেয়র জিল্লুর রহমান জুয়েলের নির্দেশনায় শহরজুড়ে উচ্ছেদ অভিযান চালায় পৌরসভার স্টাফরা। গত ক’দিন আগে পৌরসভা থেকে উচ্ছেদ অভিযান চালিয়ে সব অপসারণ করা হয়। সকল ধরনের বিলবোর্ড ধ্বংস করা হয়। দলীয়, ব্যক্তিগত প্রচার-প্রচারণা, কোনো প্রতিষ্ঠানের প্রচারণায় লাগানো বিলবোর্ড, ব্যানার, ফেস্টুন সব অপসারণ করা হয়। এর থেকে সরকার দলের নেতাণ্ডনেত্রী, এমপি, মন্ত্রী কারোটাই ছাড় দেয়া হয় নি। এমনকি মেয়রকে শুভেচ্ছা জানানো বিলবোর্ডও উচ্ছেদ করা হয়। বাদ যায় নি জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের আশপাশ, শিক্ষামন্ত্রীর বাসার সামনে এবং আশপাশও। একই সাথে রাস্তার পাশে থাকা ভ্রাম্যমাণ দোকান, ভ্যানগাড়ি, টং দোকানও উচ্ছেদ করা হয় এবং ফুটপাত দখলমুক্ত করা হয়। পৌরসভার এই উচ্ছেদ অভিযানের ফলে শহরটাকে এখন অনেকটাই পরিচ্ছন্ন দেখা যাচ্ছে। রাস্তার দুইপাশ দখলমুক্ত হওয়ায় যানজটও কিছুটা কমেছে।

এ বিষয়ে চাঁদপুর পৌরসভার মেয়র জিল্লুর রহমান জুয়েল বলেন, শহর পরিচ্ছন্ন রাখতে এবং অবৈধ দোকানপাটসহ বিভিন্ন স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান অব্যাহত থাকবে। শহরকে সুন্দর রাখতে সর্বস্তরের জনগণের সহযোগিতা কামনা করেছেন তিনি।

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়