চাঁদপুর, শনিবার, ৩ ডিসেম্বর ২০২২, ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ৮ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪  |   ২৯ °সে
আজকের পত্রিকা জাতীয়আন্তর্জাতিকরাজনীতিখেলাধুলাবিনোদনঅর্থনীতি শিক্ষা স্বাস্থ্য সারাদেশ ফিচার সম্পাদকীয়
ব্রেকিং নিউজ
  •   ফরিদগঞ্জে কিন্ডারগার্টেন এসোসিয়েশন মেধাবৃত্তি পরীক্ষা
  •   হাইমচরে রাতভর পাহারা দিয়েও রক্ষা হয়নি চরের মাটি
  •   বড়স্টেশন মেঘনায়  ট্রলারের ধাক্কায় নিঁখোজ জেলের লাশ পাঁচদিন পর উদ্ধার
  •   মতলব উত্তরে মোটর সাইকেল দূর্ঘটনায় আহত তানভীরও চলে গেলো না ফেরার দেশে
  •   কাল হেলিকপ্টারে মতলব উত্তরে আসছেন ড. এনায়েতুল্লাহ আব্বাসী

প্রকাশ : ০৮ জুন ২০২২, ০০:০০

মাদকের টাকা জোগাড় করতে ২০ হাজার টাকায় সন্তান বিক্রি!

মাদকের টাকা জোগাড় করতে ২০ হাজার টাকায় সন্তান বিক্রি!
রেদওয়ান আহমেদ জাকির ॥

দেড় বছরের শিশু সন্তান আব্দুল্লাহ ও পাঁচ বছরের সামিয়াকে নিয়ে লামিয়া আক্তার ও ইমরান হোসেনের সংসার। দু সন্তানকে নিয়ে প্রতিদিনের মতো ঘুমাতে যায় লামিয়া ও ইমরান। প্রকৃতির ডাকে ভোরের দিকে ঘুম ভেঙ্গে লামিয়া দেখে তার ছেলে সন্তানও নেই, স্বামীও নেই। বাড়ি, পাড়া, প্রতিবেশী ও আত্মীয়-স্বজনের বাড়িতে তাদের খুঁজে না পেয়ে সোমবার সন্ধ্যায় থানায় অভিযোগ করেন তিনি।

এ অভিযোগের ভিত্তিতে থানা পুলিশ বিভিন্ন জায়গায় অভিযান পরিচালনা করে। ওইদিন রাত ৯টার দিকে মতলব উত্তর উপজেলার সুলতানাবাদ ইউনিয়নের চরলক্ষ্মীপুর গ্রামের প্রধানীয়া বাড়ির প্রবাসীর নিঃসন্তান স্ত্রী রুমা আক্তারের কাছ থেকে শিশুটিকে উদ্ধার করে পুলিশ। পরে রাতেই সন্তানহারা মা লামিয়ার কাছে শিশুটিকে ফিরিয়ে দেয়া হয়।

মতলব পৌরসভার বাবুরপাড়া প্রধানীয়া বাড়ির অধিবাসী লামিয়া ও ইমরান দম্পতি। হতদরিদ্র মা লামিয়া মানুষের বাড়িতে ঝিয়ের কাজ করেন। আবার কখনো কখনো ভিক্ষাও করেন। ইমরান হোসেন পেশায় দিনমজুর। তাদের দুই সন্তানের মধ্যে বড় মেয়ে সামিয়ার বয়স ৫ বছর ও ছেলে সন্তান আব্দুল্লাহর বয়স দেড় বছর।

বাবুরপাড়া এলাকার স্থানীয়রা জানান, ওরা দুজনেই ছোটখাটো কাজ করে। টাকাণ্ডপয়সার অভাব সারা বছর লেগে আছে। ইমরানের আবার নেশার অভ্যাস রয়েছে। এজন্যে স্ত্রীর সাথে প্রায়ই টাকাণ্ডপয়সা নিয়ে ঝগড়া হয়। স্ত্রীকে মারধর করে। মাদকের টাকা জোগাড় করতে সকলের অগোচরে দেড় বছরের সন্তানকে নিয়ে রোববার ভোরে বেরিয়ে পড়ে। পরে তার পূর্বপরিচিত মতলব উত্তর উপজেলার চরলক্ষ্মীপুর গ্রামের প্রধানীয়া বাড়ির রুমা আক্তারের কাছে ২০ হাজার টাকায় ছেলে সন্তান আব্দুল্লাহকে বিক্রি করে দেয়।

তদন্ত কর্মকর্তা এসআই রুহুল আমিন বলেন, সন্তানের মায়ের অভিযোগ পেয়ে আমরা বিভিন্ন জায়গায় খোঁজ করি। গোপন সূত্রে সোমবার রাত ৯টার দিকে অভিযান চালিয়ে রুমা আক্তারের কাছ থেকে দেড় বছরের ছেলে সন্তান আব্দুল্লাহকে উদ্ধার করে রাতেই তার মায়ের কাছে ফিরিয়ে দিই।

রুমা আক্তারের কাছে জানা যায়, লামিয়ার স্বামী ইমরান তার (রুমা) কাছে ২০ হাজার টাকায় ওই শিশুটিকে বিক্রি করেছে।

সন্তান ফিরে পেয়ে লামিয়া আকুতি সুরে বলেন, থানার স্যারগো অনেক ধন্যবাদ। তারা আমার কষ্ট দূর করে সন্তান আমাকে ফেরত দিয়েছেন। আমার স্বামী নেশা করে। নেশার টাকা জোগাড় করতেই আমার ছেলেকে বিক্রি করে দিয়েছে।

থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ মহিউদ্দিন মিয়া জানান, অভিযুক্ত ইমরান হোসেনের বিরুদ্ধে এখনও কেউ অভিযোগ করেনি। সে আত্মগোপনে আছে। তার মুঠোফান বন্ধ রয়েছে।

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়