চাঁদপুর, বৃহস্পতিবার, ১ ডিসেম্বর ২০২২, ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ৬ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪  |   ২৪ °সে
আজকের পত্রিকা জাতীয়আন্তর্জাতিকরাজনীতিখেলাধুলাবিনোদনঅর্থনীতি শিক্ষা স্বাস্থ্য সারাদেশ ফিচার সম্পাদকীয়
ব্রেকিং নিউজ
  •   বিজয়ের মাস ডিসেম্বর শুরু
  •   হাজীগঞ্জের কিউসি টাওয়ারে আগুন :  আহত ১০ 
  •   ৪৫তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ, শূন্যপদ ২৩০৯
  •   করোনার টিকার চতুর্থ ডোজ দেওয়ার সুপারিশ
  •   চাঁদপুর শহরে বিদ্যুৎষ্পৃষ্টে এক যুবকের শরীর জ্বলসে গেছে

প্রকাশ : ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০০:০০

হাজীগঞ্জে ঘর বাঁধলো মালয়েশিয়ার তরুণী আয়েশা
কামরুজ্জামান টুটুল ॥

ঘর বাঁধার স্বপ্ন নিয়ে প্রেমের টানে এবার হাজীগঞ্জে চলে এসেছে মালয়েশিয়ার তরুণী নূর আয়েশা। গত বৃহস্পতিবার (১৫ সেপ্টেম্বর) রাতে হাজীগঞ্জ পৌরসভাধীন ৬নং ওয়ার্ডের মকিমাবাদ এলাকায় ধর্মীয় রীতি মেনে হাজীগঞ্জের যুবক ওমর ফারুক ও মালয়েশিয়ার তরুণী নূর আয়েশার বিয়ে পড়ানো হয়।

এর আগে গত বুধবার (১৪ সেপ্টেম্বর) এই তরুণী মালয়েশিয়া থেকে তার মা, বড় ভাই ও বড় ভাইয়ের স্ত্রীকে নিয়ে বাংলাদেশে আসেন। ওমর ফারুক চাঁদপুর সদর উপজেলার বড় শাহতলী চৌধুরী বাড়ির মৃত কামালের ছেলে। তিনি হাজীগঞ্জ পৌরসভাধীন মকিমাবাদ গ্রামে একটি ভাড়া বাসায় থাকেন।

মালয়েশিয়ার তরুণী নূর আয়েশা ওই দেশের পেনাং শহরের বাসিন্দা। তিনি স্থানীয় একটি ইউনিভার্সিটিতে পড়াশোনা করছেন এবং পড়ালেখার পাশাপাশি চাকুরি করছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, জীবিকার টানে ওমর ফারুক ৭ বছর আগে মালয়েশিয়া যান। সেখানে ফেসবুকে নূর আয়েশার সাথে পরিচয় হয় তার। পরে দু’জনে একে অপরের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন। গত ৪ মাস পূর্বে ওমর ফারুক বাংলাদেশে চলে আসেন। এই ৪ মাস প্রিয় মানুষটিকে কাছে না পেয়ে ১৪ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশে আসেন নূর আয়েশা।

গত বৃহস্পতিবার রাতে নূর আয়েশা তার মা, বড় ভাই ও বড় ভাইয়ের স্ত্রীর উপস্থিতিতে ওমর ফারুকের অভিভাবকদের সম্মতিতে ধর্মীয় রীতি মেনে বাঙালি বধূ সেজে বিয়ের পিঁড়িতে বসেন। বিয়ের আগে ধুমধামে তাদের গায়ে হলুদ অনুষ্ঠান হয়।

ওমর ফারুক জানান, সত্যিকারের ভালোবাসা কোনো বাধা মানে না। একই কথা বলেন নূর আয়েশা। দেশে (মালয়েশিয়া) ফিরে দু’জনই নতুনভাবে ক্যারিয়ার শুরু করবেন বলে তারা জানান।

ভিনদেশি বউয়ের সাথে সম্পর্ক কেমন জানতে চাইলে ওমর ফারুকের মা জানান, পুত্রবধূ কিছু কিছু বাংলা শিখার চেষ্টা করছে। পুত্রবধূর সাথে তার মা, বড় ভাই ও ভাইয়ের স্ত্রী বাংলাদেশে এসেছে, তারাও খুব ভালো।

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়