চাঁদপুর, বৃহস্পতিবার, ১ ডিসেম্বর ২০২২, ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ৬ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪  |   ২৬ °সে
আজকের পত্রিকা জাতীয়আন্তর্জাতিকরাজনীতিখেলাধুলাবিনোদনঅর্থনীতি শিক্ষা স্বাস্থ্য সারাদেশ ফিচার সম্পাদকীয়
ব্রেকিং নিউজ
  •   বিজয়ের মাস ডিসেম্বর শুরু
  •   হাজীগঞ্জের কিউসি টাওয়ারে আগুন :  আহত ১০ 
  •   ৪৫তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ, শূন্যপদ ২৩০৯
  •   করোনার টিকার চতুর্থ ডোজ দেওয়ার সুপারিশ
  •   চাঁদপুর শহরে বিদ্যুৎষ্পৃষ্টে এক যুবকের শরীর জ্বলসে গেছে

প্রকাশ : ০১ অক্টোবর ২০২২, ০০:০০

জেলার ২১৯টি পূজা মণ্ডপে আজ থেকে শুরু হচ্ছে পাঁচদিনব্যাপী শারদীয় দুর্গোৎসব
বিমল চৌধুরী ॥

দেবী বরণে অপেক্ষার প্রহর শেষ। সারাদেশের ন্যায় চাঁদপুরেও অনুষ্ঠিত হচ্ছে শারদীয় দুর্গোৎসব। আজ ১ অক্টোবর শনিবার সন্ধ্যায় শ্রীশ্রী দুর্গাদেবীর ষষ্ঠাদি কল্পারম্ভ ও ষষ্ঠীবিহিত পূজার মধ্য দিয়ে শুরু হবে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের টানা পাঁচদিনব্যাপী বৃহৎ ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা। মহালয়ার মধ্য দিয়ে দেবীর বোধন (জাগরণ) হয়ে থাকলেও আজ হবে দেবীর মর্ত্যে আগমন। সনাতন ধর্মাবলম্বীদের বিশ্বাসমতে, এ বছর দেবী দুর্গা পুত্র কন্যাদের সাথে নিয়ে হাতীতে (গজ) চড়ে পৃথিবীতে আগমন করবেন। পঞ্চমদিন অর্থাৎ আগামী ৫ অক্টোবর বুধবার শ্রীশ্রী দুর্গাদেবীর দশমীবিহীত পূজা শেষে ভক্তদের পুষ্পাঞ্জলি গ্রহণ শেষে নৌকায় চড়ে স্বামীর গৃহের উদ্দেশ্যে মর্ত্যলোক ত্যাগ করবেন।

দেবীর মর্ত্যলোকে আগমনকে কেন্দ্র করে বাঙালি সনাতন ধর্মাবলম্বীগণ মহা ধুমধামে, উৎসবমুখর পরিবেশে দেবীবরণে হয়ে উঠেছেন ব্যস্ত। তারা দেবীর সন্তষ্টি কামনায় বৃহৎ পরিসরে আয়োজন করেছেন দেবী পূজার। পূজা মণ্ডপগুলো করা হয়েছে দৃষ্টিনন্দন। স্থাপন করা হয়েছে লাল, নীল রং বেরংয়ের নানা বৈদ্যুতিক বাতি। আজ সন্ধ্যা রাত থেকে ঢাক-ঢোলের বাজনায় মুখরিত হয়ে উঠবে পূজামণ্ডপ। তবে কোনো কোনো পূজা মণ্ডপের গুটিকয়েক ভক্তের অতিরঞ্জিত বৃহৎ শব্দের নাচণ্ডগান আর হৈ হুল্লোড় ভক্ত হৃদয়ের কাছে হয়ে উঠবে অসহ্য জ্বালা যন্ত্রণার কারণ। পূজা বহির্ভূত এসব কার্যক্রম বন্ধে পূজা পরিষদসহ ধর্মপ্রাণ সনাতন ধর্মাবলম্বী ভক্তবৃন্দ যথেষ্ট আন্তরিক থাকলেও তাদের এই আন্তরিকতা ব্যর্থতায় রূপ নেয়।

শারদীয় দুর্গোৎসবে জাতি, ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে সকল শ্রেণি-পেশার মানুষকে যোগ দিতে দেখা যায়। এজন্যে সার্বজনীন উৎসব হিসেবে দুর্গাপূজার ব্যাপক পরিচিতি রয়েছে। সারাদেশে ব্যাপক আয়োজনে এ বছর প্রায় ৩২ হাজারের উপরে পূজামণ্ডপে অনুষ্ঠিত হবে দুর্গা পূজা। সেদিক থেকে চাঁদপুর জেলায় দেবীবরণে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে ২১৯টি পূজামণ্ডপ। এর মধ্যে রয়েছে চাঁদপুর সদর উপজেলায় ৩৬টি, কচুয়া উপজেলায় ৪১টি, মতলব দক্ষিণ উপজেলায় ৩৮টি, মতলব উত্তর উপজেলায় ৩১টি, হাজীগঞ্জে ২৯টি, হাইমচর উপজেলায় ৬টি, ফরিদগঞ্জ উপজেলায় ২০টি ও শাহরাস্তি উপজেলায় ১৮টি পূজামণ্ডপ। ইতিমধ্যে দেবী বরণে সকল আয়োজন সম্পন্ন করেছেন পূজারীগণ।

গতকাল থেকেই আলোকিত হয়ে উঠেছে সকল পূজামণ্ডপ। আজ সন্ধ্যা রাত থেকে বেজে উঠবে ঢাক-ঢোল আর কাশার ঘন্টা। পরদিন চণ্ডী পাঠে মুখরিত হবে পূজামণ্ডপ। ভক্তরা ভিড় জমাবেন দেবীবরণে।

পূজারীদের ধারণা, এ বছর করোনার ভয়াবহতা না থাকায় দর্শনার্থীদের উপস্থিতি থাকবে অনেকটাই বেশি। সেদিক লক্ষ্য রেখে অনেক পূজামণ্ডপেই রাখা হয়েছে প্রবেশ ও বের হওয়ার জন্য আলাদা আলাদা পথ। নিরাপত্তার লক্ষ্যে অনেক মণ্ডপে স্থাপিত হয়েছে সিসি ক্যামেরা, রাখা হয়েছে বিকল্প আলোর ব্যবস্থাসহ নিজস্ব স্বেচ্ছাসেবক কর্মী, পূজার নিরাপত্তা প্রদানে প্রশাসন গ্রহণ করেছে ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা। পূজার এ ক’দিন রাস্তাঘাটে থাকবে পুলিশ, র‌্যাব, বিজিবি সদস্যদের উপস্থিতি। লক্ষ্য একটাই সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষা করা। শান্তিপূর্ণভাবে উৎসব সম্পন্ন করার লক্ষ্যে সহযোগিতা কামনা করেছেন চাঁদপুর জেলা পূজা উদ্যাপন পরিষদ নেতৃবৃন্দ। তবে গত বছর পূজাকালীন অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার কথা স্মরণ করতেই সনাতন ধর্মাবলম্বীদের মনে আশঙ্কা দেখা দেয়। তাদের অনেকের মনেই প্রশ্ন, গত বছরের পুনরাবৃত্তি ঘটবে না তো এ বছর পূজা মণ্ডপে ? তবে তাদের মনে যতই ভয় ভীতি বা সংশয় থাকুক না কেন, এ বছর পূজা মণ্ডপের নিরাপত্তা প্রদানে প্রশাসনের বাড়তি ব্যবস্থা রয়েছে।

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়