চাঁদপুর, শুক্রবার, ২৭ জানুয়ারি ২০২৩, ১৩ মাঘ ১৪২৯, ৪ রজব ১৪৪৪  |   ২৮ °সে
আজকের পত্রিকা জাতীয়আন্তর্জাতিকরাজনীতিখেলাধুলাবিনোদনঅর্থনীতি শিক্ষা স্বাস্থ্য সারাদেশ ফিচার সম্পাদকীয়
ব্রেকিং নিউজ
  •   বাবুরহাট উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের আয়োজনে সরস্বতী পুজা উদযাপন
  •   চাঁদপুর শহরে বেড়েই চলছে কিশোর গ্যাংয়ের উৎপাত
  •   চাঁদপুর জেলা আইনজীবী সমিতিতে বিএনপি প্যানেলের নিরঙ্কুশ বিজয়
  •   চাঁদপুর সেন্ট্রাল ইনার হুইল ক্লাবের গৌরবের যুগপূর্তি অনুষ্ঠান
  •   হয়রানির আরেক নাম প্রি-পেইড বিদ্যুৎ মিটার

প্রকাশ : ০৮ নভেম্বর ২০২২, ০০:০০

হাজীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় মেজর (অবঃ) রফিকুল ইসলাম বীর উত্তম এমপি
কামরুজ্জামান টুটুল ॥

আওয়ামী লীগে কখনো অনৈক্য নেই, একটু দূরত্ব রয়েছে। আমাদের মাঝে এখন আর অনৈক্য নেই। আর ঐক্যের বিকল্প নেই। সম্প্রতি শাহরাস্তি ও হাজীগঞ্জে যুবদলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর রালিতে আমরা লাঠি দেখেছি। তারা আমাদের দলীয় নেতা-কর্মী ও পুলিশের উপর হামলা করেছে। এতে করে বোঝা যায় তারা হিংস্র হয়ে উঠেছে। আওয়ামী লীগে সমন্বয়হীনতা থাকার কারণে তারা এটা করতে সাহস পেয়েছে। এখন আমাদের নেতা-কর্মীরা আমার সাথে যোগাযোগ করছে। তারা এখন ঐক্যবদ্ধ। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বলেছেন তৃণমূল কখনো বিশ্বাস ঘাতকতা করে না, আমি নিজেও তৃণমূলের নেতা। তৃণমূল বিশাল জলরাশি। আমরা সবাই সেই জলরাশির অংশবিশেষ। গতকাল সোমবার হাজীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন চাঁদপুর-৫ (হাজীগঞ্জ-শাহরাস্তি) আসনের সংসদ সদস্য মেজর (অবঃ) রফিকুল ইসলাম বীর উত্তম।

এ সময় তিনি আরো বলেন, রাশিয়া ইউক্রেন যুদ্ধে বিশ্ব টালমাটাল। সব স্থানে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি পাচ্ছে। এটার জন্য আমরা দায়ি না। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দক্ষতার সাথে সেই বিষয়গুলো মোকাবেলা করছেন। আপনাদের সাথে আমাদের দেখা না হলেও আমি আপনাদের পাশে আছি সবসময়।

তিনি বলেন, সম্মেলনের মাধ্যমে নেতৃত্ব নির্বাচিত হবে। দ্বিধাদ্বন্দ্বের কোনো কারণ নেই। তবে তার আগে নেতা-কর্মীদের ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব নাছির উদ্দিন আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক আবু নঈম পাটওয়ারী দুলাল, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাবেক সদস্য অধ্যাপক একেএম ফজলুল হক, উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য খাইরুল কবির আবাদ, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান গাজী মোঃ মাঈনুদ্দিন, জেলা আওয়ামী লীগের কোষাধ্যক্ষ রোটাঃ আহসান হাবিব অরুণ, হাজীগঞ্জ পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পৌর মেয়র আ.স.ম মাহবুব উল আলম লিপন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব হেলাল উদ্দিন মিয়াজী।

অনুষ্ঠানের শুরুতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ মহান মুক্তিযুদ্ধের সকল শহীদ এবং প্রয়াত মুক্তিযোদ্ধা, দলীয় সংসদ সদস্য, জাতীয়, জেলা ও হাজীগঞ্জ উপজেলা পর্যায়ের আওয়ামী লীগ, অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে শোক প্রস্তাব পাঠ করেন উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গাজী মোঃ মাঈনুদ্দিন।

উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক গোলাম ফারুক মুরাদের সঞ্চালনায় সভায় উপজেলা নেতৃবৃন্দের পক্ষে বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান মোল্লা ও সাংগঠনিক সম্পাদক হাজী জসিম উদ্দিন। ইউনিয়ন নেতৃবৃন্দের মধ্যে বক্তব্য রাখেন দ্বাদশগ্রাম ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও ইউপি চেয়ারম্যান খোরশেদ আলম বকাউল, হাটিলা পশ্চিম ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হক রাসেল পাটওয়ারী, গন্ধর্ব্যপুর দক্ষিণ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ গিয়াস উদ্দিন বাচ্চু, গন্ধর্ব্যপুর উত্তর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গাজী ওলি উল্যাহ্, বড়কুল পূর্ব ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জহির হোসেন প্রধানীয়া, বড়কুল পশ্চিম ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মনির হোসেন গাজী, বড়কুল পূর্ব ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু তাহের মিয়া, সদর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব সফিকুল ইসলাম মীর, কালচোঁ দক্ষিণ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আকতার হোসেন মিকন, কালচোঁ উত্তর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যান মানিক হোসেন প্রধানীয়া, বাকিলা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মাহফুজুর রহমান ইউসুফ পাটওয়ারী ও রাজারগাঁও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হাজী আবুল কালাম।

টুকিটাকি

বাকি আছে ৩

হাজীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় বক্তব্য রাখেন পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পৌর মেয়র আ.স.ম. মাহবুব উল আলম লিপন। সম্প্রতি পৌরসভার সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলরের মিথ্যা প্রপাগান্ডা নিয়ে কথা বলতে গিয়ে তিনি বলেন, আমার বিরুদ্ধে আমার দলের লোকেরা জড়িত। এই ষড়যন্ত্রে ৮ জনকে আমরা খুঁজে পেয়েছি। ইতিমধ্যে ষড়যন্ত্র থেকে ৫ জন সরে গেছে। বাকি তিনজন ষড়যন্ত্রে এখনো জড়িত। ওই সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর বিএনপির সমর্থক। আর তাকে আসছে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান করার লোভ দেয়া হয়েছে। উপজেলা আওয়ামী লীগের শীর্ষ এক নেতাকে ইঙ্গিত করে মেয়র বলেন, একটি নির্বাচনে ফেল করে নিজেকে ধরে রাখতে পারেন নি, ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছেন। এসব করে কোনো লাভ হবে না, এই ষড়যন্ত্র আমরা প্রকাশ করবো।

প্রতিবাদ ও নিন্দা

সম্প্রতি হাজীগঞ্জ পৌরসভার জনৈক নারী কাউন্সিলর পৌর মেয়রকে নিয়ে যে কটুক্তি করে যাচ্ছিলেন তার বিষয়ে তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে উপজেলা আওয়ামী লীগ। সোমবার অনুষ্ঠিত বর্ধিত সময় উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান গাজী মাঈনুদ্দিন এই নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান। স্থানীয় সংসদ সদস্য মেজর (অবঃ) রফিকুল ইসলাম বীর উত্তমণ্ডএর উপস্থিতিতে এ সময় গাজী মাঈনুদ্দিন আরো বলেন, এ বিষয়ে পৌর মেয়র আইনের আশ্রয় নিয়েছেন। আমরা আশা করবো এ বিষয়ে সঠিক তদন্ত হবে।

নেতারা তৃণমূলের মূল্যায়ন চায়

উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় বক্তব্য রাখেন উপজেলার সকল ইউনিয়নের সভাপতি কিংবা সাধারণ সম্পাদকগণ। তৃণমূলের এসব নেতার বক্তব্যে বেশিরভাগ নেতার দাবি ছিল-আসছে সম্মেলনে তৃণমূলের ভোটাধিকার প্রয়োগ করে নেতা নির্বাচন করার পক্ষে।

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়