চাঁদপুর, শনিবার, ৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২১ মাঘ ১৪২৯, ১২ রজব ১৪৪৪  |   ২৫ °সে
আজকের পত্রিকা জাতীয়আন্তর্জাতিকরাজনীতিখেলাধুলাবিনোদনঅর্থনীতি শিক্ষা স্বাস্থ্য সারাদেশ ফিচার সম্পাদকীয়
ব্রেকিং নিউজ
  •   কচুয়ায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নব-নিয়োগপ্রাপ্ত সহকারী শিক্ষকদের সাথে এমপির মতবিনিময়
  •   খলিশাডুলীতে স্কুলছাত্রীর আত্মহত্যা
  •   জানুয়ারিতে সড়ক দুর্ঘটনায় ৩২২ জনের মৃত্যু
  •   আজ রোটারিয়ান মরহুম দেওয়ান আবুল খায়েরের ২৫তম মৃত্যুবার্ষিকী
  •   ফরিদগঞ্জে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে দেশীয় অস্ত্র ও মাদকসহ আটক তিন

প্রকাশ : ৩০ নভেম্বর ২০২২, ০০:০০

মধুসূদন উবির শিক্ষার্থীদের শিক্ষা উপকরণ দিবেন মোহাম্মদ আলী মাঝি
স্টাফ রিপোর্টার ॥

সদ্য প্রকাশিত এসএসসি পরীক্ষায় পুরাণবাজার মধুসূদন উচ্চ বিদ্যালয় ভালো ফলাফল অর্জন করায় জিপিএ-৫ পাওয়া ছাত্র-ছাত্রীসহ পরীক্ষায় উত্তীর্ণ ছাত্র-ছাত্রীদের সাথে গতকাল ২৯ নভেম্বর মঙ্গলবার সকালে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন চাঁদপুর পৌরসভার প্যানেল মেয়র, বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির অবিভাবক সদস্য মোহম্মদ আলী মাঝি। তিনি ভালো ফলাফলের জন্যে উত্তীর্ণ ছাত্র-ছাত্রীসহ বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও অভিভাবকদের ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি এমপি শিক্ষা প্রসারে ব্যাপক কাজ করে যাচ্ছেন। তাঁর এ কার্যক্রমকে এগিয়ে নিয়ে যেতে আমাদেরও কিছু করণীয় রয়েছে বলে আমি মনে করি।

তিনি বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশমতো দেশের মানুষের কল্যাণে কাজ করছেন ডাঃ দীপু মনি এমপি। তিনি পররাষ্ট্রমন্ত্রী থাকাকালীন সমুদ্র বিজয়সহ পররাষ্ট্র নীতিতে ব্যাপক সাফল্য অর্জন করেছেন। বর্তমানে শিক্ষামন্ত্রীর দায়িত্ব পাওয়ার পর ঝরে যাওয়া শিশুদেরকে বিদ্যালয়মুখী হওয়ার লক্ষ্যে নানা কর্মসূচি গ্রহণ করেছেন। ভগ্নদশায় থাকা বিদ্যালয় ভবনের উন্নয়ন, অত্যাধুনিক শিক্ষাব্যবস্থা চালু, কারিগরি শিক্ষার উপর গুরুত্বারোপ, নির্দিষ্ট সময়ে ফলাফল প্রকাশসহ শিক্ষা কার্যক্রমকে যুগপোযোগী করে তুলেছেন। তার এ সকল কার্যক্রমকে এগিয়ে নিয়ে যেতে আমাদেরও কিছু করণীয় রয়েছে বলে আমি মনে করি। আমাদের সমাজে এখনো অনেক পরিবার রয়েছে যাদের আর্থিক পরিস্থিতি খুবই অসচ্ছল। এ সকল পরিবারের সন্তানেরা সময়মত স্কুলে আসতে পারলেও তাদের ভালো পোশাক পরিচ্ছদ, স্কুল ড্রেসসহ শিক্ষা উপকরণ থাকে না। এ সকল ছাত্র-ছাত্রীদের আমরা আমাদের সামর্থ্য অনুযায়ী কিছুটা হলেও সহযোগিতা করতে পারি। তিনি লেখা পড়ার পাশাপাশি ছাত্র-ছাত্রীদের মানসিক বিকাশে শিক্ষা সফরে নিয়ে যাওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করেন এবং বিদ্যালয়ের অসহায় মেধাবী ১শ’ ছাত্র-ছাত্রীকে জুতা মৌজাসহ স্কুল ড্রেস প্রধানের ইচ্ছা পোষণ করেন। এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্যে তিনি প্রধান শিক্ষক গণেশ চন্দ্র দাসের প্রতি অনুরোধ জানান। এ সময় বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি সুভাষ চন্দ্র রায়, দাতা সদস্য তমাল কুমার ঘোষ, কার্যকরি সদস্য জাকির হোসেন খান শিফন, বিপ্লব কুমার গোপসহ অভিভাবক এ কার্যনির্বাহী কমিটির নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

ভালো ফলাফলের অর্জনের জন্য বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি সুভাষ চন্দ্র রায় উর্ত্তীর্ণ ছাত্র-ছাত্রীসহ অভিভাবক ও শিক্ষকদের প্রতি ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, বিদ্যালয়টি ক্রমান্বয়ে এগিয়ে যাবে তার কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে। তিনি বিদ্যালয়ের উত্তরোত্তর সাফল্য কামনা করেন।

এ বছর বিদ্যালয় হতে ১৭০ জন ছাত্র-ছাত্রী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে এর মধ্যে ১৬৫ জন উত্তীর্ণ হন। উত্তীর্ণদের মাঝে ১০ জন জিপিএ-৫ পান। এদের মধ্যে বিজ্ঞানে ০৮ জন ও মানবিক রয়েছেন ০২ জন।

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়