মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর, ২০২১  |   ২৭ °সে
আজকের পত্রিকা জাতীয়আন্তর্জাতিকরাজনীতিখেলাধুলাবিনোদনঅর্থনীতি শিক্ষা স্বাস্থ্য সারাদেশ ফিচার সম্পাদকীয়
ব্রেকিং নিউজ
  •   হাজীগঞ্জের পৃথক দুটি তদন্ত চলছে : পরিস্থিতি স্বাভাবিক : ১৪৪ ধারা প্রত্যাহার

প্রকাশ : ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০০:০০

মা ইলিশ রক্ষায় নিষেধাজ্ঞা সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনার দাবি চাঁদপুরের ব্যবসায়ী ও জেলেদের ইলিশ গবেষক বলছেন, সিদ্ধান্ত সঠিক
স্টাফ রিপোর্টার ॥

ইলিশকে নির্বিঘ্নে ডিম ছাড়ার সুযোগ দিতে সরকার আগামী ৪ অক্টোবর থেকে ২৫ অক্টোবর পর্যন্ত ২২দিন চাঁদপুরসহ সারাদেশে ইলিশ ধরা বন্ধ করেছে। সরকারের এ সিদ্ধান্তকে পুনর্বিবেচনার আহ্বান জানিয়েছেন চাঁদপুরের মৎস্য ব্যবসায়ীসহ জেলেরা। জেলা মৎস্য বণিক সমিতির সভাপতি রোটাঃ আবদুল বারী জমাদার মানিক ১০ অক্টোবরের পর নদীতে নিষেধাজ্ঞার সঠিক সময় বলে মনে করেন। তিনি বলেন, পূর্ণিমার সাতদিন আগে থেকে শুরু হয়ে সাতদিন পর পর্যন্ত মা ইলিশ ডিম ছাড়ে। কিন্তু সরকার এ বছর অমাবস্যার ৭দিনসহ নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে। এবার অগ্রিম বেশিদিন নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে বলে মনে করেন তিনি। মৎস্য বিভাগ এবার এ সিদ্ধান্ত ঘোষণার আগে চাঁদপুরের ব্যবসায়ী, জেলেসহ অন্যদের মতামত নিলেও সরকার তা আমলে নেয়নি বলে দাবি করেন এ মৎস্য ব্যবসায়ী নেতা।

অপরদিকে ইলিশ গবেষক ড. আনিসুর রহমান বলেন, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সভায় দীর্ঘ আলোচনার পর এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। ওই সভায় গুরুত্বপূর্ণ সকল পর্যায়ের কর্মকর্তা, বিশেষজ্ঞ ও নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। তিনি জানান, ৬ অক্টোবর অমাবস্যা ও ২০ অক্টোবর পূর্ণিমাকে ঘিরে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। তাছাড়া বিষয়টি আইনেও রয়েছে। জানা যায়, প্রতি বছর আশি^নের ভরা পূর্ণিমার আগে ও পরে মিলে মোট ১৫ থেকে ১৭ দিন হচ্ছে ইলিশ ডিম ছাড়ার প্রকৃত সময়। এ সময় সাগর থেকে ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশ চাঁদপুরের পদ্মা-মেঘনাসহ বিভিন্ন নদীতে ছুটে আসে। এ সময় বিবেচনায় নিয়েই এবার ২২ দিন ইলিশ ধরায় নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে সরকার।

এদিকে চাঁদপুরের পদ্মা-মেঘনায অসংখ্য চর ডুবোচর জেগে ওঠায় ইলিশের নির্বিঘ্নে প্রজনন মারাত্মকভাবে বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। তাই এসব চর খনন করা সর্বাগ্রে জরুরি বলে এখানকার মৎস্যজীবীসহ ব্যবসায়ীরা দাবি জানিয়েছেন।

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়