চাঁদপুর, বৃহস্পতিবার, ১ ডিসেম্বর ২০২২, ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ৬ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪  |   ২২ °সে
আজকের পত্রিকা জাতীয়আন্তর্জাতিকরাজনীতিখেলাধুলাবিনোদনঅর্থনীতি শিক্ষা স্বাস্থ্য সারাদেশ ফিচার সম্পাদকীয়
ব্রেকিং নিউজ
  •   বিজয়ের মাস ডিসেম্বর শুরু
  •   হাজীগঞ্জের কিউসি টাওয়ারে আগুন :  আহত ১০ 
  •   ৪৫তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ, শূন্যপদ ২৩০৯
  •   করোনার টিকার চতুর্থ ডোজ দেওয়ার সুপারিশ
  •   চাঁদপুর শহরে বিদ্যুৎষ্পৃষ্টে এক যুবকের শরীর জ্বলসে গেছে

প্রকাশ : ১১ অক্টোবর ২০২১, ০০:০০

কচুয়ায় আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে বাড়ি দখল ও ভাংচুর
মেহেদী হাসান ॥

কচুয়ায় আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে জোরপূর্বক বসতবাড়ি দখল ও ঘর ভাংচুরের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় শনিবার রাতে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের পক্ষে হাবিবুর রহমান বাদী হয়ে কচুয়া থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, কচুয়া উপজেলাধীন গোহট উত্তর ইউনিয়নের হারিচাইল গ্রামের হাজী বাড়ির বাসিন্দা মৃত শহীদ উল্লাহর পুত্র হাবিবুর রহমান পৈতৃক সূত্রে সাবেক ৯০নং হালে ১০৫নং হারিচাইল মৌজার বিএস ৭১, এসএ ১১১, বিএস ৫৩৩নং খতিয়ানভূক্ত সাবেক ২৩৮হালে ১০৪৬দাগে মোট ৮/৮৭ শতাংশ ভূমি যার উত্তরে মোখলেছুর রহমান দক্ষিণে খোকন, পূর্বে আবুল হাশেম ও পশ্চিমে পুকুর অত্র চৌহিদ্দির মধ্যে নালিসি মোট ৮/৮৭ শতাংশ ভূমি শান্তিপূর্ণভাবে ভোগদখল করিয়া আসিতেছে। একই বাড়ির মৃত আঃ কাদেরের পুত্র মোখলেছুর রহমান (৬০), তার পুত্র মাহমুদ (২০), স্ত্রী নুরজাহান বেগম (৩৫) ও আবুল হোসেনের পুত্র নাজমুল (২১) উক্ত সম্পত্তি জোবর দখল করার উদ্দ্যেশ্যে প্রকাশ্যে দিবালোকে প্রাণনাশের হুমকি প্রদান করেন। এক পর্যায়ে উপায় অন্তর না পাইয়া চাঁদপুরের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে তাদের বিরুদ্ধে সিআরপিসি কোর্ট নং ০১ চাঁদপুরে একটি মামলা দায়ের করা হয়। মামলা নং-৮৪৮/২১। বিজ্ঞ আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে উক্ত সম্পত্তির উপর স্থিতিশীল অবস্থা দায়ের করেন।

ক্ষতিগ্রস্ত হাবিবুর রহমান জানান, শনিবার ৯ অক্টোবর বিবাদীরা আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে একটি বসতঘর, একটি দৌচালা কাচারি ঘর ও ১৭-১৮টি বিভিন্ন প্রজাতির গাছ কেটে ফেলে। এ সময় তাদেরকে বাধা প্রয়োগ করলে বিবাদীগণ অশালীন ভাষায় গালমন্দসহ তাদের হাতে থাকা দা কুঠার ও শাবাল নিয়ে আমার ও আমার পরিবারকে হত্যার উদ্দেশ্যে তাড়া করে আসে।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত মোখলেছুর রহমান জানান, আমরা নিজ সম্পত্তির গাছ ও ঘর উচ্ছেদ করেছি। তারা উল্টো আমাদের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা দিয়ে হয়রানি করে আসছে।

কচুয়া থানার সেকেন্ড অফিসার মোহাম্মদ তাজুল ইসলাম জানান, অভিযোগ পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে উভয় পক্ষকে বিজ্ঞ আদালতের নির্দেশ মেনে উক্ত সম্পত্তিতে স্থীতিশীল রেখে শান্তিপূর্ণভাবে বসবাস করার জন্য নির্দেশ দিয়ে এসেছি।

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়