সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ৯ কার্তিক ১৪২৮, ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩  |   ২৮ °সে
আজকের পত্রিকা জাতীয়আন্তর্জাতিকরাজনীতিখেলাধুলাবিনোদনঅর্থনীতি শিক্ষা স্বাস্থ্য সারাদেশ ফিচার সম্পাদকীয়
ব্রেকিং নিউজ
  •   হাইমচরে শীতকালীন সবজির বাম্পার ফলন, দামে অসন্তুষ্ট কৃষক : সবজি ক্ষেতে সবুজ হাসি থাকলেও কৃষকের মুখ ম্লান
  •   অশুভ শক্তি শক্তিশালী হলেও জয়ি হতে পারবে না : শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি এমপি

প্রকাশ : ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০০:০০

হাইমচরে গর্ভবতী মায়ের জিরো হোম ডেলিভারি বিষয়ক গণসচেতনতামূলক সভা
শরীফুল ইসলাম ॥

হাইমচর উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা অফিস কর্তৃক ৩নং আলগী দুর্গাপুর দক্ষিণ ইউনিয়ন পরিষদের ৯নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মোঃ কাউছার বেপারীর কার্যালয়ে মা ও শিশু স্বাস্থ্য কার্যক্রমের আওতায় মা মণি প্রজেক্টের সহযোগিতায় গর্ভবতী মায়েদের জিরো হোম ডেলিভারি বিষয়কগণ জনসচেতনতামূলক সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় সভাপতিত্ব করেন ৩নং আলগী দুর্গাপুর (দঃ) ইউনিয়ন পরিষদের ৯নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য মোঃ কাউছার বেপারী এবং সভা পরিচালনা করেন মা মণি প্রজেক্টের উপজেলা কো-অর্ডিনেটর মোঃ রফিকুল ইসলাম।

সভায় গুরুত্বপূর্ণ বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা পরিদর্শক স্বরূপ মাঝি। তিনি তার বক্তব্যে বলেন, বর্তমান সরকার মাতৃ মৃত্যু ও শিশু মৃত্যু হার কমাতে গর্ভবতী মায়েদের নিরাপদ ডেলিভারি নিশ্চিত করতে ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রের ব্যবস্থা করেছেন। হাইমচর উপজেলার ৩নং আলগী দুর্গাপুর (দঃ) ইউনিয়নের গন্ডামারা গ্রামে পুরাতন ভোট অফিসে ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র দেয়া হয়েছে। উক্ত কেন্দ্রে ২৪ ঘণ্টা ফ্রি চিকিৎসা, ঔষধ ও গর্ভবতী মায়ের ডেলিভারি করানো হয়। গর্ভবতী মায়ের গর্ভ শুরু থেকে বাচ্চা জন্ম দেয়া পর্যন্ত যাবতীয় চিকিৎসা ও ঔষধ খরচ এই ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র থেকে দেয়া হবে। এই কেন্দ্রে অক্সিজেনের ব্যবস্থা আছে। একজন গর্ভবতী মায়ের গর্ভের শুরু থেকে বাচ্চা জন্ম হওয়া পর্যন্ত সকল ধরনের চেক আপসহ যাবতীয় চিকিৎসা ব্যবস্থা রয়েছে। বর্তমানে বাংলাদেশে শিশু মৃত্যুর হার লাখে ২১ জন এবং মাতৃ মৃত্যুর হার লাখে ১৬৫ জন। তাই এই মৃত্যুর হার কমাতে সরকার এমন মহতী উদ্যেগ নিয়েছেন।

ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রের সহযোগী প্রতিষ্ঠানের উপজেলা কো-অর্ডিনেটর মোঃ রফিকুল ইসলাম বলেন, আপনারা যারা শিক্ষক, মসজিদের ইমাম আছেন, তারা তাদের জায়গা থেকে স্কুলে, মসজিদে শুক্রবারে আলোচনার সময় এ বিষয় নিয়ে সাধারণ জনগণকে সচেতন করতে পারেন। তাহলে দেশ ও দেশের মানুষের কল্যাণে এ স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র শতভাগ কাজ করে এগিয়ে যেতে পারবে।

৩নং আলগী দুর্গাপুর (দঃ) ইউনিয়ন পরিষদের ৯নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য মোঃ কাউছার বেপারী তার সমাপনী বক্তব্যে বলেন, বর্তমান সরকার দেশ ও জাতীয় স্বার্থে সব সময় কাজ করে যাচ্ছে। ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র তার বাস্তব প্রমাণ। বিগত দিনেও আমরা দেখেছি এই সরকার কমিউনিটি ক্লিনিক দিয়ে ঘরে ঘরে চিকিৎসা সেবা পৌঁছাতে সক্ষম হয়েছেন। বর্তমানে প্রাইভেট হাসপাতালগুলোতে একজন গর্ভবতী মায়ের সিজারে ডেলিভারি করাতে গেলে দেখা যাচ্ছে ২০/৩০ হাজার থেকে ৫০/৭০ হাজার টাকা লেগে যায়। যা বহন করার ক্ষমতা গরীব অসহায় মানুষের নেই। আমরা যারা জনপ্রতিনিধি, খেটে খাওয়া সাধারণ জনগণ নিয়ে কাজ করি, অসহায় গরিব মানুষের কষ্ট বুঝার চেষ্টা করি। তাই আমরা জানি সাধারণ জনগণ এই করোনা মহামারীর কারণে কতটা কষ্টে জীবন-যাপন করছেন। সরকারের এই মহতী উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে সমাজের আমরা যারা সচেতন ব্যক্তিবর্গ আছি, আমরা এই ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে আমাদের গর্ভবতী মা-বোনদেরকে চিকিৎসার জন্যে উৎসাহ প্রদান করবো।

উক্ত সভায় উপস্থিত ছিলেন ৩নং আলগী দুর্গাপুর (দঃ) ইউনিয়ন পরিষদের ৭, ৮, ৯নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা ইউপি সদস্য জাহানারা বেগম, চরভাঙ্গা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জগদীশ বাইন, সহকারী শিক্ষক মোঃ আবুল কাশেম বেপারী, ১৮নং চরভাঙ্গা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক লিটন সরকার, চাঁদপুর কণ্ঠের প্রতিনিধি মোঃ শরীফুল ইসলাম, হাইমচর মডেল স্কুলের প্রধান শিক্ষক মাওলানা মোঃ হাফিজুর রহমান। এছাড়াও এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, বিভিন্ন মসজিদের ইমাম, পল্লী চিকিৎসকসহ সাধারণ জনগণ উপস্থিত ছিলেন।

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়